৮ জানুয়ারি ২০১৮


শাবির বাংলা বিভাগের নাম ফলক উঠিয়ে দিল রসায়ন বিভাগ

শেয়ার করুন

শাবি প্রতিনিধি

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগের নাম ফলক উঠিয়ে দিয়ে ওইস্থানে নিজ বিভাগের শিক্ষকদের বসার জন্য রুম তৈরি করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে রসায়ন বিভাগের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন-বি এর তৃতীয় ও চতুর্থ তলায় একটি অফিস ও তিনটি ক্লাস রুম রয়েছে বাংলা বিভাগের।

বাংলা বিভাগ ছাড়া চারতলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবন বি-তে রসায়ন বিভাগ ও কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড পলিমার সায়েন্স বিভাগ তাদের একাডেমিক কার্যক্রম চালিয়ে আসছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তৃতীয় তলায় সিঁড়ির সম্মুখে দেয়ালে দীর্ঘদিন যাবত কাচেঁর উপর কাঠের খোদাই করে লেখা বাংলা বিভাগ নামটি উঠানো। ওইস্থানে থাই মিস্ত্রিরা থাই গ্লাস দিয়ে দুটি রুম তৈরির কাজ করছেন। পাশে রসায়ন বিভাগের দুই-একজন শিক্ষককেও দেখা যায়।

বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. শরদিন্দু ভট্টাচার্য বলেন, রসায়ন বিভাগের শিক্ষকরা কোন ধরনের আলোচনা ছাড়াই আমাদের বিভাগের লেখা নাম ফলক উঠিয়ে দিয়ে তাদের বসার জন্য রুম তৈরি করছেন, এটা শুভকর নয়।

তিনি বলেন, আমি তাদের লিখিত ও মৌখিক উভয়ভাবে এ কাজ না করার জন্য অনুরোধ করেছি। তারা সেটা উপেক্ষা করে নিতান্ত জোর করে তাদের বসার রুম তৈরির কাজ শুরু করে দিয়েছেন।

অধ্যাপক শরদিন্দু আরও বলেন, কয়েকদিন আগে আমি তৃতীয় তলার সিঁড়ি বেয়ে নামছিলাম। তখন দেখি, তাদের শিক্ষকরা মিস্ত্রি সাথে নিয়ে রুম তৈরি জন্য মাপজোখ নিচ্ছেন। আমি নিজ থেকে তাদের বিভাগীয় প্রধানকে (রসায়ন বিভাগের) জিজ্ঞেস করলে তিনি আমাকে বাংলা বিভাগ নাম ফলক উঠিয়ে নেওয়ার জন্য বলেন।

তিনি বলেন, আমি তখন উনাকে বিষয়টি লিখিতভাবে দিতে বলি। তারা লিখিতভাবে আমাকে জানালে,আমিও তাদের লিখিতভাবে নাম ফলক না সরানোর জন্য অনুরোধ করি।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করছেন রসায়ন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মোঃ আব্দুস সোবহান। তিনি বলেন, সৌভাগ্যক্রমে ওইদিন বাংলা বিভাগের প্রধানের সাথে আমারা দেখা হয়ে যায়। আমি তখন উনাকে তাদের বিভাগের নাম ফলক উঠিয়ে নিতে বলি।

তিনি বলেন, বাংলা বিভাগের সবকটি রুমই আমাদের। আমরা তাদের (বাংলা বিভাগকে) রুম সঙ্কট থাকায় রুম দিয়েছি। নাম ফলকটি রসায়ন বিভাগের ল্যাবরেটরি রুমের দেয়ালে লাগানো ছিল। রুম আমাদের হওয়ায় দেয়ালও আমাদের হবে, এটাই স্বাভাবিক। আমারা রুম সঙ্কট নিরসনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও রেজিস্ট্রারের অনুমতি নিয়ে এখানে কাজ করছি।

বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. আশ্রাফুল করীম বলেন, তাদের (রসায়ন বিভাগের) স্পেস সঙ্কট হলে দ্বিতীয় তলায় একই স্পেস তারা পাচ্ছে। দ্বিতীয় তলার পুরো ফ্লোর শুধুমাত্র তারা ব্যবহার করে। সেটা না করে তারা বাংলা বিভাগের প্রবেশমুখে রুম তৈরির কাজ শুরু করছে।

তিনি বলেন, এর মাধ্যমেই প্রতিয়মান হয়, এ কাজ বাংলা বিভাগের প্রতি তাদের বিদ্বেষের বহিঃপ্রকাশ। বাংলা বিভাগের নাম ফলক খুলে ফেলার মাধ্যমে পুরো বাঙ্গালি জাতিকে অপমান করা হয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মোঃ ইশফাকুল হোসেন বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। আমি দুইদিন থেকে ছুটিতে। আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে বিষয়টি দেখব।

তবে এ বিষয়ে কিছু জানেন না উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, একটা বিভাগের নামফলক উঠিয়ে দিয়ে আরেকটা বিভাগ রুম তৈরি করবে, এটা কীভাবে সম্ভব। আমি দুই বিভাগের প্রধানের সাথে কথা বলে শিগগির এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

 (আজকের সিলেট/প্রতিনিধি/এইচআই/৭ জানুয়ারি/ঘ.)

 

 

শেয়ার করুন