আজ বৃহস্পতিবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

বাড়ি ফেরা হলো না তাদের

  • আপডেট টাইম : October 18, 2017 1:06 PM

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : কুয়েতে বসবাসরত মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের কান্দিগাঁও গ্রামের জুনাইদ আহমদের স্ত্রী ছেলে-মেয়েসহ পরিবারের পাঁচজনের মর্মান্তিক মৃত্যুতে গ্রাম জুড়ে শোকের ছায়া বিরাজ করছে। মঙ্গলবার ভোর থেকেই কান্দিগাও ও নিহত রোকেয়ার বাড়ি গুজারাইয়ে কান্নার রোল পড়ে গেছে।

ছেলের বউ ও নাতি-নাতনির একসাথে অকাল মৃত্যুর ঘটনায় বৃদ্ধ মা মরিয়ম বেগম (৭০) জুনাইদের বড় বোন মুসলিমা বেগম (৩৮), বড়মামা খিজির আহমদ খাঁন, পাশের বাড়ির বাসিন্দা আব্দুল আজিদসহ স্বজনরা অনেকটাই বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন। শোকাহত পরিবারটিকে সান্তনা দিতে ছুটে যান জনপ্রতিনিধিসহ এলাকার শত শত গ্রামবাসী।

গতকাল সোমবার বাংলাদেশ সময় রাত ১১ ঘটিকার দিকে কুয়েত শহরের সালমিয়াত এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। গৃহকর্তা জুনাইদ আহমদ বাসার বাইরে থাকায় বেঁচে যান।

সরেজমিনে কান্দিগাঁও গ্রামে গেলে জুনাইদ আহমেদের মামা খিজির আহমদ জানান, তার ভাগ্নে জুনাইদ আহমদ স্ত্রী সন্তান নিয়ে দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে কুয়েতে বসবাস করছেন। গত বছরের ডিসেম্বরে স্বপরিবারে দেশে এসে আবার ২ ফেব্রুয়ারি কুয়েত ফিরে যান জুনায়েদ। এ বছরও আসার কথা ছিলো তাদের। কিন্তু জীবনহীন বস্তু হয়ে ফিরলো দেশে।

সোমবার বিকেলে জুনাইদ আহমদ বাসার বাইরে থাকাকালে আকস্মিকভাবে এ ভবনের ৫ তলার একটি বাসায় এসির কম্প্রেসার বিষ্ফোরণ ঘটে ভবনে আগুন লেগে যায়। ভয়ে ৪ তলা থেকে নিচে নামতে গিয়ে ৩ তলার বাসিন্দা জুনাইদ আহমদের স্ত্রী রোকেয়া বেগম (৩২), মেয়ে জামিলা আহমদ (১৫), ছেলে ইমাদ আহমদ (১২), মেয়ে নাবিলা আহমদ (৯) ও ছেলে ফাহাদ আহমদ (৫) ধোঁয়ায় শ্বাসরুদ্ধ হয়ে ভবনের ভেতরেই মারা যান।

নিহতের গ্রামের বাড়ি কমলগঞ্জের কান্দিগাঁও গ্রামে একমাত্র বৃদ্ধা মা মরিয়ম বিবি (৭০) ছাড়া আর কেউ নেই। খবর পেয়ে সোমবার রাতেই জুনাইদের বড় বোন মুসলিমা বেগম (৪৮) স্বামীর বাড়ি থেকে এসেছেন। নিহত গৃহবধূ রোকেয়া বেগমের বাবার বাড়ি মৌলভীবাজার জেলা শহরের গোজারাই গ্রামে। সেখানেও শোকের মাতম চলছে। পরিবারে আত্মীয়স্বজনদের আহাজারিতে আকাশ ভারী হয়ে উঠে।

জুনাইদ আহমদের স্ত্রী রোকেয়ার বড় ভাই জাকারিয়া আহমেদ জানান, ২০০০ সালে জুনাইদের সাথে তার ছোট বোন রোকেয়ার বিয়ে হয়েছিল। বিয়ের ৬ মাস পর তার বোনকে নিয়ে জুনাইদ কুয়েতে চলে যায়। তার ভাগ্নে-ভাগ্নির জন্ম হয়েছে কুয়েতে। তাদের জীবিত বদনখানি আর কপালে জুটলো না।

তিনি আরো জানান, কুয়েত থেকে লাশ দেশে আনার জন্য জুনাইদ আহমেদ চেষ্টা করছেন। কয়েক দিনের মধ্য দেশে লাশ আনা হতে পারে।

জুনাইদ আহমদের মা বৃদ্ধা মরিয়ম বিবি জানান, দুর্ঘটনার কয়েক ঘণ্টা আগেও রোকেয়া বেগম শাশুড়ীর সাথে মোবালে ফোনে কথা বলেছে আমি এই দুর্ঘটনাকে কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছি না।

 

(আজকের সিলেট/১৮ অক্টোবর/ডি/এসসি/ঘ.)

Print Friendly, PDF & Email
  •  
  •  
  •  
  •  

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ