১৯ আগস্ট ২০১৮


অবৈধ পশুর হাটের নেপথ্যে কারা?

শেয়ার করুন

অতিথি প্রতিবেদক : প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটে এখনো জমে উঠার অপেক্ষায় কোরবানির পশুর হাট। নগরীর বৃহত্তম পশুর হাট কাজির বাজার ছাড়াও ১১টি হাটের ইজারা প্রদান করেছে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। ঘোষিত বৈধ হাটের মধ্যে একমাত্র কাজির বাজার ছাড়া বাকি সব হাট সিলেট নগরীর বাইরে। অবশ্য নগরীর বিভিন্ন স্থানে দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে বেশ কটি অস্থায়ী অবৈধ পশুর হাট।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে অবৈধ হাট উচ্ছেদের হুঙ্কার দিলেও বাস্তবে কোনো প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে না। প্রতিদিন নতুন নতুন স্পটে গড়ে উঠছে অবৈধ অস্থায়ী পশুর হাট। এর পেছনে রয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালী মহল।

সাধারণত সিলেটে কোরবানির পশুর হাট জমে উঠে ঈদের দু-তিন দিন আগে। গরু আগে কিনে বাসা বাড়িতে রাখার অসুবিধার কারণে ঠিক ঈদের আগের দিনটাকেই বেছে নেন অনেক ক্রেতা।

সরেজমিনে সিলেট নগরী ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন স্থানে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা হাটে গরু আসতে শুরু করেছে। অভিযোগ রয়েছে এসব হাটে জোরপূর্বক গরুর চালান আটকে দেয়া হচ্ছে।

টিলাগড় পয়েন্টে বিশাল সামিয়ানা টানিয়ে বাঁশ বেঁধে তৈরি করা হয়েছে অস্থায়ী পশুর হাট। এ হাট বসানোর নেপথ্যে স্থানীয় কাউন্সিলর রয়েছেন বলে জানা গেছে।

নগরীর প্রবেশ মুখ কুমারগাঁও তেমুখী এলাকায় অবৈধ অস্থায়ী পশুর হাট গড়ে তোলা হয়েছে। এর নেতৃত্বে রয়েছেন সরকারদলীয় স্থানীয় কিছু নেতা।

বৃহত্তম পশুর হাট কাজির বাজারে নিয়ে আসতে চাইলেও বিভিন্ন ব্যবসায়ীর গরু অস্থায়ী হাটে আটকে দেয়া হচ্ছে। এতে চাইলেও বিক্রেতারা তাদের পছন্দের বাজারে গরু নিয়ে যেতে পারছে না।

নগরীর কাজির বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে গরু নিয়ে আসতে শুরু করেছে ব্যবসায়ীরা। তবে এখনো বাজার পুরোদমে জমে উঠেনি।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ ঘোষিত ১১ পশুর বৈধ হাটের মধ্যে রয়েছে- কোতোয়ালি মডেল থানার কাজীরবাজার পশুর হাট, জালালাবাদ থানার শিবের বাজার পশুর হাট, কুড়িরগাঁও (ইসলামগঞ্জ বাজার) পশুরহাট, বিমানবন্দর থানার সাহেব বাজার সুন্নিয়া হাফিজিয়া দাখিল মাদরাসার মাঠে স্থাপিত পশুর হাট, দক্ষিণ সুরমা থানার লালাবাজার পশুর হাট, কামালবাজার পশুর হাট, মোগলাবাজার থানার জালালপুর পশুর হাট, হাজীগঞ্জ বাজার ও রাখালগঞ্জ বাজার পশুর হাট এবং শাহপরান থানা এলাকায় আরও তিনটি পশুর হাট বসবে।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মুহম্মদ আব্দুল ওয়াহাব জানান, নগরীর কাজিরবাজারসহ ১১টি হাট বসানোর অনুমতি দেয়া হয়েছে। এর বাইরে কোথাও হাট বসতে দেয়া হবে না। অবৈধভাবে যেসব হাট বসানো হয়েছে তা বন্ধ করে দেয়া হবে।

(আজকের সিলেট/১৯ আগস্ট/ডি/কেআর/ঘ.)

শেয়ার করুন