১৪ আগস্ট ২০১৭


টানা বৃষ্টিতে নদীর পানি বৃদ্ধি, প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল

শেয়ার করুন

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : টানা বৃষ্টিতে ও উজান থেকে নেমে আসা ভারতীয় পাহাড়ি ঢলে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় ধলাই নদের প্রতিরক্ষা বাঁধের আগের দু’টি ভাঙ্গন দিয়ে পানি বের হয়ে ৪ ইউনিয়নের ৩০০ হেক্টর জমির রোপা আমন নিমজ্জিত হয়েছে। বৃষ্টি না থামলে ধলাই নদীসহ পাহাড়ি ছড়ার পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে কমলগঞ্জে বন্যার আশঙ্কা রয়েছে।

ধলাই নদীসহ সবগুলো পাহাড়ি ছড়ার পানি বৃদ্ধি পেয়ে শনিবার সকালে মাধবপুর ইউনিয়নের শিমুলতলা গ্রাম এলাকায় বাঁধের পুরাতন ভাঙ্গন দিয়ে ও চৈতন্যগঞ্জ গ্রাম এলাকার ধলাই প্রতিরক্ষা বাঁধের পুরাতন ভাঙ্গন দিয়ে পানি দ্রুত প্রবেশ করছে ফসলি জমিতে। প্রবেশ করা ঢলের পানিতে চৈতন্যগঞ্জ গ্রামে কমপক্ষে ৫০ হেক্টর জমির রোপা আমন নিমজ্জিত হয়েছে।

ধলাই নদে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ইসলামপুর ইউনিয়নে ডলুয়াছড়া ও নঈনাছড়া দিয়ে পাহাড়ি ঢলের পানি উল্টো কালারাই বিল, নোয়াগাঁও, পাথারীগাঁও, শ্রীপুর, ভান্ডারীগাঁও ও উত্তর গুলের হাওর গ্রামের ব্যাপক এলাকার ফসলি জমিতে পানি প্রবেশ করে। তাই এসব গ্রামের দেড় শতাধিক হেক্টর জমিতে এবং মাধবপুর ইউনিয়নের শিমুলতলা এলাকার ২৫ হেক্টর জমির রোপিত রোপা আমন ফসল নিমজ্জিত হয়েছে।

কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান জানান, যেভাবে পানি প্রবেশ করছে তাতে মনে হয় আরও ব্যাপক এলাকা তলিয়ে যাবে।

কমলগঞ্জ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত কৃষি কর্মকর্তা কৃষ্ণ কুমার সিংহ জানান, টানা বৃষ্টিতে ধলাই নদের পানি প্রবেশ করে ইসলামপুর, মাধবপুর, আলীনগর ও কমলগঞ্জ ইউনিয়নের ৩০০ হেক্টর জমির রোপিত রোপা আমন তলিয়ে গেছে। আগামী এক দিনের মধ্যে এসব জমির পানি না কমলে রোপিত ফসল বিনষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক জানান, টানা বৃষ্টির কারণে ধলাই নদীসহ সবগুলো পাহাড়ি ছড়ার পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে বৃষ্টি না থামলে ধলাই নদী ও পাহাড়ি ছড়ার পানি বেড়ে বিপদ সীমা অতিক্রম করতে পারে। এ দিকে উপজেলা প্রশাসন সার্বক্ষনিক নজর রাখছে।

 

(আজকের সিলেট/১৪ আগষ্ট/ডি/এসটি/ঘ.)

শেয়ার করুন