২০ আগস্ট ২০১৭


১১ বছর পর অাপন ঠিকানা খুজে পেল মানসিক ভারসাম্যহীন (পাগলী) হাফেজা

শেয়ার করুন

ফাহাদ মারুফ : মানুষ মানুষের জন্য, রাস্তার মানসিক ভারসাম্যহীনদের পাগল বলবেন না ওরা মানসিক রোগী। আসুন সকলে মিলে ওদের পাশে দাড়াই।

সবার আগে বলা লাগে সেই মানুষটির কথা, (অামরা যাদের পাগল বলি) যিনি পাগল খোজে বেড়ান, যার কাজের জন্য আমরা আজ উৎসাহী, আগ্রহী।

হয়ত তিনি শুরু না করলে এই কাজ হত না। প্রেরণা পেতাম না আমরা। সিলেটসহ সারা দেশে তিনি কাজ করছেন।

যার কথা বলছি উনি হলেন ব্যাংকার শামীম আহমেদ। আর সিলেট জেলার জাফলংয়ের সেই  মানসিক ভারসাম্যহীন হাফেজার ঠিকানা যার উদ্যোগে বের হয়, উনি হলেন ব্যবসায়ী শামীম আহমেদ শিশির।

ধরা যায় নাম ও কাজের মিল।

ব্যাংকার শামীম আহমেদ সম্পর্কে জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন…

http://www.sylhetmedia.com/?p=26205

নামের তাছির হিসাবে টিক তারই উত্তরসূরির মত কাজ করলেন ব্যবসায়ী শামীম আহমেদ শিশির।

প্রায় ১১ বছর পর নিখোজ হওয়া মানসিক ভারসাম্যহীন কিশোরগঞ্জের মাইলং গ্রামের( মাইলং মসজিদ আটি) হাফিজা বেগমকে তার পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

যাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে মানসিক ভারসাম্যহীন হাফিজা খোজে পেল ঠিকানা।

তারা হলেন, জাফলংয়ের ব্যবসায়ী শামীম, ও তার বন্ধু আখতার হোসাইন আরমান, ফয়ছল আহমেদ, আশিক আহমেদ, সুহেল খান, নজরুল ইসলাম,আইয়ুব খান,মিরাজুল ইসলাম ও সুহেল আহমেদসহ এলাকার অন্যান্য মুরব্বীগণ।

এই নিয়ে ৩জন মানসিক ভারসাম্যহীন পাগলকে তারা ঠিকানা বের করে তাদের আপন স্থানে পৌছে দেন।

শনিবার (১৯ আগস্ট) সকালে মানসিক ভারসাম্যহীন হাফিজার বাড়ী (কিশোরগঞ্জ) থেকে পরিবারের লোকজন জাফলংয়ে আসেন হাফিজাকে নেওয়ার জন্য।

 

তারপর সন্ধ্যা ৬টার দিকে কিশোরগঞ্জের রফিকুল ইসলামের মাধ্যমে পরিবারের কাছে হাফিজাকে হস্তান্তর করা হয়।

মানসিক ভারসাম্যহীন হাফিজার স্বামী আসকর আলী, গ্রাম, ভরা (স্কুল হাটি) মিঠাইন।
উনার ২ মেয়ে ও ১ ছেলে।
বড় মেয়ে স্বপ্না,মেজো মেয়ে রন্তা ও ছোট ছেলে হৃদয়।

ছোট ছেলে হৃদয় ও তার মা হাফেজা বেগম

ছোট ছেলে হৃদয়ের এক বছরের সময় মানসিক রোগে হারিয়ে যান হাফেজা বেগম। এখন হৃদয়ের বয়স ১২ বছর।

 

পরিবারের লোকজন হারিয়ে যাওয়া হাফিজাকে পেয়ে সবার চোখে চলে আসে অানন্দের জল, এ যেনো ১১ বছর আগের হারিয়ে যাওয়া আনন্দ অশ্রু। ফিরে পেলো সন্তান মায়ের মমতা।

উল্লেখ্য, সিলেটের জাফলং এলাকায় কিছুদিন আগে মানসিক ভারসাম্যহীন হাফেজাকে রাস্তায় দেখতে পান ব্যবসায়ী শামীম আহমেদ শিশির।
তারপর প্রচারণা চালান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে।

FB_IMG_15031758016903662

শিশিরের ফেসবুক বন্ধু কিশোরগঞ্জের রফিকুল ইসলামের মাধ্যমে খোজে পাওয়া যায় সেই ভারসাম্যহীন নারী হাফেজার ঠিকানা।
বিশেষ দ্রষ্টব্য : ঈদের পর ব্যাংকার শামীম আহমেদ মানসিক ভারসাম্যহীন কিশোরগঞ্জের হাফেজা বেগমের চিকিৎসার ব্যাপারে সহযোগীতা করবেন বলে তিনি জানান।

 

 

(আজকের সিলেট/২০ আগষ্ট/ডি/এফএম/ঘ.)

শেয়ার করুন