২২ আগস্ট ২০১৭


‘সংখ্যালঘু সম্প্রদায় থেকে আপনাকে প্রধান বিচারপতি করেছেন প্রধানমন্ত্রী’

শেয়ার করুন

আজকের সিলেট ডেস্ক:: ‘শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী না হলে আপনিও প্রধান বিচারপতি হতে পারতেন না। দৃষ্টান্ত স্থাপন করার জন্য উপজাতি ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায় থেকে শেখ হাসিনা আপনাকে এই দায়িত্ব দিয়েছিলেন। আপনি পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন।’

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে উদ্দেশ্য করে মঙ্গলবার (২২ আগস্ট) দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে আয়োজিত এক মানববন্ধন ও সমাবেশে উপরোক্ত কথা বলে এস কে সিনহার পদত্যাগও দাবি করেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আওয়ামী লীগ নেতা হাছান মাহমুদ।

তিনি আরো বলেন, প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার বিরুদ্ধে শপথ ভঙ্গ ও সংবিধান লঙ্ঘনের পাশাপাশি রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ তুলে বলেছেন, তিনি প্রধান বিচারপতির পদকে ‘কলঙ্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ’ করেছেন।

‘বিতর্কিত প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ’ শিরোনামে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগ আয়োজিত ওই সমাবেশে হাছান মাহমুদ বলেন, “যখন কোনো বিচারপতি শপথ গ্রহণ করে, তখন তিনি শপথ গ্রহণ করেন- ‘আমি অনুরাগ বা বিরাগের বশবর্তী হব না’।

প্রধান বিচারপতির পদত্যাগের দাবিতে এ মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

জেলা পর্যায় থেকে তুলে এনে সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে কীভাবে প্রধান বিচারপতি বানানো হয়েছে তাও স্মরণ করিয়ে দেন ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হওয়াতে আপনার মতো মৌলভীবাজার জেলার আইনজীবী এখন প্রধান বিচারপতি হয়েছেন, আপনি এই পদটিকে কলঙ্কিত করেছেন।’

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সংসদ অবৈধ হলে সেই সংসদের মঞ্জুর করা বেতন-ভাতা কিভাবে নেন? আমি অনুরোধ করবো এসব বেতন- ভাতা ফেরত দিন, অনুরাগ- বিরাগের বশবর্তী না হওয়ার যে শপথ নিয়েছেন তা ভঙ্গ করেছেন, এখন আপনাকে পদত্যাগ করতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছে। এটা সংবিধানে লেখা আছে। আপনি এটার প্রতি অশ্রদ্ধা দেখিয়ে সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন। পদে থাকার আর অধিকার আপনার নেই।’

অতীতে বিচারপতিদের প্রতি কেমন আচরণ করা হয়েছে তাও উল্লেখ করেন আওয়ামী লীগের এই নেতা।

তিনি বলেন, ‘অতীতে অনেক বিচারপতি আইন লঙ্ঘন করে শাস্তির মুখোমুখি হয়েছেন। তাদের দরজায় লাথি মারা হয়েছে। এখনো সে সব করা হয়নি। আওয়ামী লীগ দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে সব সময় সোচ্চার থাকবে।’

এছাড়াও ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে ‘লাফালাফি’ না করতে বিএনপিকে আহ্বান জানিয়েছেন হাছান মাহমুদ।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, “বিএনপিকে বলব রায় নিয়ে লাফালাফি করবেন না। এই সিনহা বাবুর রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা আছে, জিয়াউর রহমান সামরিক শাসন জারি করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিল। তার আইনগুলো অবৈধ।

“আবার বিচারপতি খায়রুল হকের পঞ্চম সংশোধনী বাতিল করে যে রায়, সে রায়ে সামরিক শাসন জারি করে জিয়াউর রহমানের কর্মকাণ্ডকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।”

হাছান বলেন, “অর্থাৎ জিয়াউর রহমান সামরিক শাসন করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে যে বিএনপি গঠন করেছে সেটি অবৈধ। কেউ যদি নির্বাচন কমিশনে গিয়ে বলে, তাহলে নির্বাচন কমিশন কোনো সংক্ষুব্ধ ব্যক্তির আপিলের ভিত্তিতে আপনাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করলেও করতে পারে।”

মানববন্ধন ও সমাবেশে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক আবুল কাশেত চিশতী, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তৈয়ব, কৃষক লীগ সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

 

(আজকের সিলেট/এস আর/ঘ.)

শেয়ার করুন