৩০ আগস্ট ২০১৭


বালাগঞ্জে পাকা সড়কের উপর বাঁশের সাঁকো

শেয়ার করুন

বালাগঞ্জ প্রতিনিধি : বালাগঞ্জে উপজেলা পরিষদে যাতায়াতের পাকা সড়কের উপর বাঁশের সাঁকো দিয়ে পথচারীরা করছেন। কুশিয়ারা নদীর ভাঙনে রাস্তাটির প্রায় ২০-২৫ মিটার অংশ তলিয়ে প্রতিদিন শিক্ষার্থীসহ লোকজন ঝুকি নিয়ে চলাচল করছেন। সম্প্রতিক কয়েক দফার বন্যায় কুশিয়ারা নদীর তীরঘেঁষা এই রাস্তাটি ভাঙন আক্রান্ত হয়। এতে মানুষের দুর্ভোগের অন্ত নেই। বাঁশের সাঁকো পার হতে গিয়ে প্রতিদিন দুর্ঘটনায় পড়ছেন অনেকেই।

অথচ এই সাঁকো দিয়ে এলাকার শিশু কিশোর, নারী, বৃদ্ধ, স্থানীয় তয়রুন নেছা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, উপজেলার প্রশাসনিক দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারী সহ এলাকার সর্বসাধারণ লোকজন মালামাল নিয়ে দুর্ভোগ সয়েই যাতায়াত করছেন। অনেক সময় শিক্ষার্থীদের বই-খাতা পানিতে পড়ে গিয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। অভিভাবকরাও চরম দুশ্চিন্তায় রয়েছেন।

তাছাড়া স্থানীয় কয়েকটি গ্রামের লোকজনও এই সড়ক দিয়ে বালাগঞ্জ বাজারে গিয়ে প্রয়োজনীয় সদাইপাতি ক্রয়-বিক্রয় করেন। উন্নয়নের মহাসড়কের এই সময়ে উপজেলা সদরে যাতায়াতের রাস্তায় সাঁকো দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ পারাপার এলাকাবাসীকে ভাবিয়ে তুলছে।

এতে মানুষ অনেক কষ্ট সয়ে পারাপার হয়ে সারছে প্রয়োজনীয় সকল কাজ। যাতায়াত অব্যাহত রাখার জন্য বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রদীপ সিংহের প্রচেষ্টায় স্থানীয় লোকজন এই পাকা সড়কের ভাঙন আক্রান্ত স্থানে বাঁশের সাঁকো তৈরি করেন।

স্থানীয় বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম ও সজিব দেব বলেন, জনগুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটির মধ্যখানে ভেঙে যাওয়ায় লোকজনের চলাচলের বিঘ্নতা ঘটছে। জরুরি ভিত্তিতে রাস্তার ভাঙন অংশ মেরামত করা অত্যান্ত জরুরি হয়ে পড়েছে।

তয়রুন নেছা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আনিকা, মনি ও প্রিয়াঙ্কা বলেন, বাঁশের সাঁকোর উপর দিয়ে পারাপার হওয়ার সময় আমাদের খুব ভয় লাগে, কখন জানি পড়ে যাই মনের মধ্যে একটা আতঙ্ক থাকে।

এবিষয়ে বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রদীপ সিংহ বলেন, বতর্মানে এই রাস্তায় বাশের সাকো দিয়ে চলাচল করছেন। বন্যার পানি কমে গেলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে রাস্তার ভাঙন আক্রান্ত স্থানে মাটি ভরাট করা হবে।

 

(আজকের সিলেট/৩০ আগষ্ট/ডি/কেআর/ঘ.)

শেয়ার করুন