৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭


নতুন ভবনে গতিশীল হবে সিসিকের কার্যক্রম

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিটি কর্পোরেশনের চাহিদা অনুযায়ী বিভাগ ও জনবল এখন বেড়েছে। এ অবস্থায় সিলেট নগর ভবনের স্বাভাবিক কার্যক্রমে কিছুটা ব্যাঘাত ঘটছিল। প্রায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২তলা ভিত্তির উপর পাঁচতলা বিশিষ্ট সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নতুন ভবন নির্মিত হয়েছে। এখন শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষা। ঈদের পরে উদ্বোধন হলে সকল কার্যক্রম নতুন ভবনে ফিরবে।

সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব জানিয়েছেন, পাঁচতলা পর্যন্ত নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। নগর ভবনের কার্যক্রম গতিশীল করতে উদ্বোধনের আগেই প্রায় ৭০ ভাগ কার্যক্রম নতুন ভবনে স্থানান্তর করা হয়েছে।

২০১২ সালের মার্চে সিলেট নগর ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তখন থেকে তোপখানাস্থ পীর হবিবুর রহমান পাঠাগার ও সারদা হল-এ নগর ভবনের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

নবনির্মিত ভবনটির ডিজাইন করেছে ঢাকার নামকরা স্থাপত্য প্রতিষ্ঠান ‘স্থপতি সংসদ’। পাঁচতলা শেষ হলেও অবশিষ্ট ৭ তলা নির্মাণ কাজের প্রস্তাবনা পাঠানো হবে মন্ত্রণালয়ে। অনুমোদন হলে হাতে নেয়া হবে বাকি কার্যক্রম।

পাঁচতলা ভবনে মোট ৯১টি কক্ষ রয়েছে। নতুন ভবনের নীচতলায় থাকবে সোনালী ব্যাংক, অভ্যর্থনা, নিয়ন্ত্রণকক্ষ, মেয়রের নিরাপত্তাকক্ষ। ১ম তলায় ট্রেড লাইসেন্স, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা, সম্মেলনকক্ষ, দাতব্য কেন্দ্র, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কক্ষ ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কক্ষ।

২য় তলায় মেয়রের কক্ষ, মেয়রের সম্মেলনকক্ষ, মেয়রের পিএসের কক্ষ, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষ, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার সম্মেলনকক্ষ, সচিবের কক্ষ, প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের অফিস কক্ষ। ৩য় তলায় প্রধান প্রকৌশলীর সম্মেলনকক্ষ, নির্বাহী প্রকৌশলীর কক্ষ, কার্য সহকারীর কক্ষ, অফিস সহকারী কক্ষ, সহকারী প্রকৌশলীর কক্ষ, উপসহকারী প্রকৌশলীর কক্ষ।

৪র্থ তলায় নির্বাহী প্রকৌশলী (পরিকল্পনা) এর কক্ষ, নির্বাহী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ)-এর কক্ষ, নির্বাহী প্রকৌশলী (মেকানিক্যাল) কক্ষ, কম্পিউটার ডাটা এন্ট্রি কক্ষ, উপসহকারী প্রকৌশলী (পানি)-এর কক্ষ। পানি সরবরাহ কক্ষ, বৈদ্যুতিক কক্ষ, সহকারী প্রকৌশলী (পানি)-এর কক্ষসহ ৫ তলা ভবনে আরো কয়েকটি বিভাগের পৃথক কক্ষ থাকবে।

সিটি কর্পোরেশনের অনলাইন সেবাসহ বেশ কিছু নতুন কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। নতুন ভবন উদ্বোধন হলে সিটি কর্পোরেশনের জনসেবা কার্যক্রম আরো গতিশীল হবে বলে আশাবাদি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

 

(আজকের সিলেট/৬ সেপ্টেম্বর/ডি/কেআর/ঘ.)

শেয়ার করুন