৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭


সংযোগের আগেই বিদ্যুৎ বিল!

শেয়ার করুন

বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি : বিয়ানীবাজারে বছর খানেক থেকে বিদ্যুৎ লাইন টেনে রাখলেও সংযোগ দেয়া হচ্ছে না। ভুক্তভোগীরা পল্লি বিদ্যুৎ অফিসে বারবার যোগাযোগ করেও সংযোগ পাননি। অথচ বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়া কুড়ি পরিবারকে জুলাই মাসের বিদ্যুৎ বিল পাঠিয়েছে পল্লি বিদ্যুৎ। ভূতুড়ে এ কান্ডটি ঘটিয়েছে সিলেট-১ পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির বিয়ানীবাজার জোনাল অফিস। যার ফলে বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের কালাইউরা গ্রামের কুড়ি পরিবারের মধ্যে বিদ্যুৎ বিল আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়া ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা বিদ্যুৎ ব্যবহার না করে বিল পেয়ে আঁতকে উঠেন। অনেকেই এ বিষয়টি বিয়ানীবাজার জোনাল অফিসে যোগাযোগ করেও প্রথমদিকে কোন প্রতিকার পান নি। পল্লি বিদ্যুৎ অফিস থেকে তাদের জানিয়ে দেয়া হয় বিল পরিশোধ করতে। এতে স্থানীয়ভাবে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়।

বিষয়টি জানাজানি হলে বিয়ানীবাজার পল্লি বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ বিলগুলো উঠিয়ে নেয়। এর মধ্যে হয়রানি থেকে বাঁচতে কয়েক জন বিল কয়েক কিলোমিটার দূরবর্তী বিদ্যুৎ অফিসে নিজ দায়িত্বে জমা দেন। কেউ কেউ বিলের টাকা সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে জমাও দিয়েছেন।

ভুক্তভোগীরা জানান, লাইন টানা হলেও মিটার সংযোগ পাননি। এছাড়া সম্প্রতি ঝড়ে বেশ কয়েকটি খুঁটি হেলে পড়লে পল্লি বিদ্যুৎ অফিসে জানানো হয়। কিন্তু দায়িত্বশীলরা এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেননি। যার কারণে ভুক্তভোগী এলাকার মানুষের মাঝে অসন্তোষ বিরাজ করছে।

কালাই উরাগ্রামের জামিল আহমদ বলেন, বিদ্যুৎ লাইন টানা হলেও আমরা দীর্ঘদিন থেকে সংযোগ পাচ্ছি না। বিদ্যুৎ অফিসে ধরনা দিয়েও কোনো কাজ হয়নি। এখন দেখি বিদ্যুৎ পাওয়ার আগেই বিল দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, পরবর্তীকালে হয়রানিতে পড়তে পারেন এ আতঙ্ক থেকে কয়েকজন ব্যাংকে বিলের টাকা জমা দিয়েছেন। আমি নিজে বিয়ানীবাজার পল্লি বিদ্যুৎ জোনাল অফিসে গিয়ে বিল জমা দিয়ে এসেছি।

আলম হোসেন বলেন, আমার ঘরে ট্রান্সফরমার গত রমজানের আগে থেকে রাখা রয়েছে। আমরা সংযোগ পেতে বারবার যোগাযোগ করলেও স্থানীয় অফিস থেকে কোনো প্রতিকার পাচ্ছি না। এরমধ্যে বিল আসায় গ্রামে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। আলমের নামে বিদ্যুৎ মিটার (১৪৭৩৩৯৪৪) ৩০ ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার দেখানো হয়েছে। বিল এসেছে ১৫৬ টাকা।

কানলি গ্রামের কুতিল মিয়া বলেন, হেলেপড়া খুঁটি আমরা নিজ খরচে ঠিক করে দিলে তারা (পল্লি বিদ্যুৎ) সংযোগ দেবে বলে জানায়। বিদ্যুৎ খুঁটি ঠিক করার নামে পল্লিবিদ্যুৎ আমাদের কাছ থেকে টাকা আদায় করতে চাইছে।

এ বিষয়ে পল্লি বিদ্যুৎ বিয়ানীবাজার জোনাল অফিসের উপব্যাবস্থাপক (ডিজিএম) অভিলাস চন্দ্র পাল বলেন, ভুল করে বিদ্যুৎ বিল চলে যাওয়ায় বিলগুলো অফিস থেকে সংগ্রহ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যারা বিল পরিশোধ করেছেন তাদের টাকা ফেরত দেয়া হবে। তিনি বলেন, গ্রামের বিভিন্ন মানুষের আপত্তির কারণে সংযোগ আটকে আছে। একই কারণে বিদ্যুৎলাইন ও খুঁটিতে কাজ করা যাচ্ছে না।

নিজ খরচে হেলে পড়া খুঁটি গ্রামবাসীকে মেরামত করার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, এ অভিযোগ সত্য নয়। এ রকম কথা অফিস থেকে কাউকে বলা হয়নি।

 

(আজকের সিলেট/৬ সেপ্টেম্বর/ডি/কেআর/ঘ.)

শেয়ার করুন