২৯ জুন ২০১৭


এবার নবীগঞ্জে চুরির অভিযোগে শিশুকে বেঁধে মারধর

শেয়ার করুন

আজকের সিলেট ডেস্ক:: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে ১২ বছরের শিশু পারভেজকে হাত-পা বেঁধে বেধড়ক মারধর করেছেন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক সদস্য ও তার পরিবারের সদস্যরা। এ সময় পারভেজের সঙ্গে থাকা ছোট ভাই ৯ বছর বয়সী বাবুল মিয়া কান্নাকাটি করলে তার মুখ চেপে ধরা হয়।

উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের কায়স্থ গ্রামে মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটে।

পারভেজের স্বজনরা জানায়, গজনাইপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড কায়স্থ গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য জাহির আলীর বাড়িতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছে একই গ্রামের আমির আলীর ছেলে পারভেজ আহমেদ। গত সোমবার জাহির আলীর ঘর থেকে একটি মেমোরি কার্ড হারিয়ে যায়। ওই পরিবারের সবাই সন্দেহ করে পারভেজ এটি চুরি করেছে। এ অভিযোগ শুনে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে পারভেজ ও তার ভাই বাবুল ওই বাড়িতে যায়।

বাবুল কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলে, সেখানে যাওয়ার পর জাহির আলীর ভাই রহমান মিয়া, ভাগ্নিজামাই শাহ নূর, ভাতিজা টিটু, পারভেজ মিয়াসহ আরও কয়েকজন পারভেজকে হাত-পা রশি দিয়ে বেঁধে মারধর শুরু করে। তখন বাবুল চিৎকার শুরু করলে তার মুখ চেপে ধরা হয়। মারধরের এক পর্যায়ে পারভেজ অজ্ঞান হয়ে পড়লে তার হাতের বাঁধন খুলে দিয়ে সবাই যার যার ঘরে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর অবস্থা কিছুটা স্বাভাবিক হলে পারভেজ ছোট ভাই বাবুলকে নিয়ে ওই বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসে। পরে পারভেজের পরিবারের লোকজন তাকে রাত ১২টার দিকে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

গত বছর গজনাইপুর ইউনিয়নের শংরসেনা গ্রামে অবৈধভাবে পাহাড় কাটার সময় ধসে দুই শ্রমিক নিহত হওয়ার ঘটনায় মামলার অন্যতম আসামি জাহির আলী।

আজকের সিলেট/সৈয়দ/

শেয়ার করুন