১০ অক্টোবর ২০১৭


খানাখন্দে ভরা হবিগঞ্জের ব্যাক রোড!

শেয়ার করুন

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জ শহরের ব্যাক রোড খানাখন্দে ভরে গেছে। শহরে যে দুটি দীর্ঘ সড়ক রয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম ব্যাক রোডটি পৌরসভার অধীন। এই সড়কের পাশেই রয়েছে দুটি সরকারি কলেজ, একটি গার্লস স্কুল, আবাসিক ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। ফলে এ সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ ও যান চলাচল করে থাকে। দীর্ঘদিন সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী থাকার পর হবিগঞ্জ পৌরসভা দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে তা পুনর্নির্মাণের উদ্যোগ নেয়।

বেবিস্ট্যান্ড মোড় থেকে চৌধুরীবাজার মোড় পর্যন্ত প্রায় দেড় কোটি টাকার কাজের টেন্ডার দেওয়া হয়।

৯৯ লাখ টাকায় বেবিস্ট্যান্ড থেকে শ্মশানঘাট মোড় পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণের কাজ পায় এসআরইউ এন্টারপ্রাইজ। ৫৫ লাখ টাকায় শ্মশানঘাট মোড় থেকে চৌধুরীবাজার মোড় পর্যন্ত ৮০০ মিটারের কাজটি পায় মেসার্স এইচএইচএন জেবি এন্টারপ্রাইজ। সরেজমিনে দেখা যায়, রাস্তার বিভিন্নস্থানে অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে পিটিআইর সামনে থেকে চৌধুরীবাজার মোড় পর্যন্ত অসংখ্য খানখন্দেকে ভরপুর। এগুলোতে বৃষ্টির পানি জমে থৈ থৈ করছে। এ ছাড়া রাস্তার পাশের ড্রেনগুলো উঁচু করে নির্মাণ করায় পানি নিস্কাশন হতে পারে না। ফলে বৃষ্টির পানি জমে বিটুমিন সরে ইট সুরকি বের হয়ে যাচ্ছে।

ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এসআরইউ এন্টারপ্রাইজের সৈয়দ রিয়াজ উদ্দিন বলেন, তিনি যে অংশে কাজ করেছেন, তা মানসম্মত। ভারী যানবাহনের চাপ ও কিছু অংশে পানি জমে থাকার কারণে কিছু কিছু স্থানে বিটুমিন উঠে গেছে।

এইচএইচএন জেবি এন্টারপ্রাইজের ঠিকাদার মহিবুল ইসলাম বলেন, যেসব জায়গায় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে, তা মেরামত করে দেওয়া হবে।

এদিকে পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে. এসআরইউ এন্টারপ্রাইজের পুরো বিল দেওয়া হয়ে গেছে। এইচএইচ এন জেবি এন্টারপ্রাইজের কিছু বিল পাওনা রয়েছে।

সহকারী প্রকৌশলী দিলীপ দাস বলেন, খানাখন্দগুলো সংশ্নিষ্ট ঠিকাদার দিয়ে মেরামত করা হবে।

কাজ যে ভালো হয়নি, মেয়র জিকে গউছ তা স্বীকার করে বলেন, রাজনৈতিক কারণে আমি কারাগারে থাকায় যেনতেনভাবে রাস্তার কাজ করা হয়েছে। এগুলো মেরামতের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

(আজকের সিলেট/১০ আক্টোবর/ডি/এসসি/ঘ.)

শেয়ার করুন