১৫ অক্টোবর ২০১৭


সিলেটে শিক্ষক সংকটে ব্যবহত হচ্ছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান

শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেট জেলার ১২ উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে সহস্রাধিক শিক্ষকের পদ শূন্য রয়েছে। এর মধ্যে প্রধান শিক্ষকের ৪৯১টি ও সহকারি শিক্ষকের ৫৫৬টি পদ দীর্ঘদিন থেকে শূন্য রয়েছে।

শূন্য পদ সমূহের মধ্যে সিলেট সদর উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৩১টি ও সহকারি শিক্ষক ১৯টি, বিশ্বনাথ উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৪০টি ও সহকারি শিক্ষক ২৯টি, বালাগঞ্জ উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৭৩টি ও সহকারি শিক্ষক ৭৬টি, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৮টি ও সহকারি শিক্ষক ১১টি, গোলাপগঞ্জে প্রধান শিক্ষক ৬১টি ও সহকারি শিক্ষক ৪০টি, বিয়ানীবাজার উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৫১টি, সহকারি শিক্ষক ১৫৩টি, জকিগঞ্জ উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৬৫টি ও সহকারি শিক্ষক ৭৪টি, কানাইঘাট উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৩৯টি ও সহকারি শিক্ষক ৬৭টি, জৈন্তাপুর উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ২৫টি ও সহকারি শিক্ষক ১৬টি, গোয়ানঘাট উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৪৫টি ও সহকারি শিক্ষক ১৮টি, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ৩৪টি ও সহকারি শিক্ষক ৩৯টি এবং দক্ষিণ সুরমা উপজেলায় প্রধান শিক্ষক ১৯টি ও সহকারী শিক্ষক ১৪টি।

শিক্ষা জীবনের প্রথম ধাপে পা দিয়েই হোঁচট খাচ্ছে কোমলমতি শিশুরা। দীর্ঘদিন থেকে এ পদগুলো শূন্য থাকায় ব্যহত হচ্ছে পাঠদান। একই সাথে অভাব রয়েছে পাঠদানে বিনোদনের উপকরণ সামগ্রীরও।

এ ব্যাপারে সিলেট জেলা শিক্ষা অফিসার মো. নুরুল ইসলাম জানান, শিক্ষক সংকট কমে যাবে। চলতি মাসে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় (সৃষ্ট পদ) ৭১ জন সহকারি শিক্ষক নিয়োগ যোগদান করবেন। তাদের নিয়োগপত্র পাঠানো হয়েছে। এছাড়া প্রধান শিক্ষকের নিয়োগ প্রক্রিয়াও চলছে। সহকারি শিক্ষক থেকে পদোন্নতি ও নন-ক্যাডার থেকে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

 

(আজকের সিলেট/১৫ অক্টোবর/ডি/এমকে/ঘ.)

শেয়ার করুন