১ নভেম্বর ২০১৭


এসএমপিতে ৬ বছরে ১১৬ পুলিশ আক্রান্ত

শেয়ার করুন

অতিথি প্রতিবেদক : জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে (জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী) দায়িত্ব পালন করছিলেন কনস্টেবল শফি আহমদ। রিকাবিবাজাস্থ কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে সাদা পোশাকে ভিডিও ফুটেজ ও স্থিরচিত্র ধারণ করার দায়িত্ব ছিল তাঁর উপর। শফি ভিডিও ফুটেজ ও স্থিরচিত্র ধারণ করে নাস্তা খেতে যান নুরী রেস্টুরেন্টে। নাস্তা শেষে দায়িত্ব পালনে অডিটোরিয়ামে যাওয়ার সময় তাঁর উপর চালানো হয় নির্মম হামলা। তাঁকে গুরুতর জখম করে ছিনিয়ে নেওয়া হয় সাথে থাকা ১৩ হাজার টাকা। কনস্টেবল শফিকে ভর্তি করা হয় ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ওই ঘটনায় মামলাও হয়।

সোমবার সেই মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত তানভীর কবির চৌধুরী সুমন মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক। গত ১৫ আগস্ট হামলায় আহত হয়েছিলেন শফি আহমদ। কিন্ত গত ৬ বছরে শফির মতোই বিভিন্নভাবে আক্রান্ত হন ১১৬ জন পুলিশ।

মহানগর পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া জানান, অপ্রীতিকর ঘটনা এড়ানোর সময় অনেক সময় পুলিশ আক্রান্তের ঘটনা ঘটে।

তিনি বলেন, বেশি পুলিশ আক্রান্তের ঘটনা ঘটেছে রাজনৈতিক পরিস্থিতি যখন উত্তপ্ত ছিল তখন। এখন পুলিশ আক্রান্তের তেমন ঘটনা নেই। পুলিশ আক্রান্তের ঘটনাগুলোকেও অন্য মামলার মতো গুরুত্ব দেওয়া হয়।

মহানগর পুলিশ সূত্র জানায়, চলতি বছরে কনস্টেবল শফি আহমদসহ ১১ জন পুলিশ সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন। ২০১২ সালে ২৮ জন পুলিশ আক্রান্ত হন। পরের বছর ২০১৩ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৩০ জনে। আর ২০১৪ সালে ২৬, ২০১৫ সালে ৮ এবং ২০১৬ সালে ১৩ জন পুলিশ আক্রান্ত হন।

পুলিশ আক্রান্তের ঘটনা দুঃখজনক বলে জানিয়েছেন সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি সিনিয়র অ্যাডভোকেট এমাদুল্লাহ শহিদুল ইসলাম শাহীন।

তিনি বলেন, বেশিরভাগ পুলিশ আক্রান্তের ঘটনা ঘটে ২০১৩ এবং ২০১৪ সালে। ওই সময় দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি খুবই খারাপ ছিল। জনগণের সেবক পুলিশ কেন আক্রান্ত হবে। যারা নিরাপত্তা দেন তারা কেন অনিরাপদ। বিষয়টি অবশ্যই খতিয়ে দেখতে হবে। দেশে এক শ্রেণির দুর্বৃত্ত রয়েছে যারা পুলিশকে টার্গেট করছে। এদেরকে আইনের আওতায় আনতে হবে। কারণ নিরাপত্তাদানকারীরা অনিরাপদ হলে তা খুবই উদ্বেগজনক হবে।

সুজনের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, দেশে এখন সুশাসনের চরম অভাব রয়েছে। এর কারণ এখন নিরাপত্তা বাহিনীই অনিরাপদ। পুলিশের উপর হামলাকারীরা ঠিকমতো গ্রেপ্তার না হওয়ায় অপরাধীরা আরো সাহসী হচ্ছে।

তিনি বলেন, অনেক সময় পুলিশের উপর হামলাকারীর পক্ষে প্রভাবশালীরা অবস্থান নেন। এসব বিষয় চিহ্নিত করে পুলিশের উপর হামলাকারীদের আইনের আওতায় এনে সঠিক বিচার নিশ্চিত করতে হবে। মনে রাখতে হবে, পুলিশ জনগনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে থাকে।

 

(আজকের সিলেট/১ নভেম্বর/ডি/কেআর/ঘ.)

শেয়ার করুন