৮ জুলাই ২০১৭


শিক্ষার মানোন্নয়নে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটিতে মতবিনিময় সভা

শেয়ার করুন

ডেস্ক রিপোর্ট : ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশে ‘শিক্ষার মান উন্নয়ন’ বিষয়ক এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ক্যাম্পাসে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী।

মতামত বিনিময়ের সুবিধার্থে ধারনাপত্র তৈরি করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ মোর্শেদা চৌধুরী। মোর্শেদা চৌধুরী’র ধারনাপত্র ও উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরীর দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্যের ভিত্তিতে ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম. নুরুল ইসলামের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী, অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান, অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. শাহ মোহাম্মদ আলীমুজ্জামান, অধ্যাপক ড. মুহম্মদ আশরাফুল আলম, অধ্যক্ষ নূরুনবী আকন্দ, অধ্যক্ষ মো. মোশাররফ আলী, অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান, অধ্যক্ষ মো. আনোয়ার হোসেন, অধ্যাপক আবদুল হক কবিরাজ, অধ্যক্ষ মোনতাজ উদ্দিন মুর্তুজা, অধ্যক্ষ মো. সাজিদুল ইসলাম প্রমুখ।

ধারনাপত্রে মোর্শেদা চৌধুরী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা লগ্ন (২০০৩) থেকে শুরু করে শিক্ষার মানোন্নয়নে গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ ও কার্যাবলী এবং ইউজিসি প্রবর্তিত ‘উচ্চ-শিক্ষার মানোন্নয়ন প্রকল্প’ গ্রহণের পর অপরাপর গৃহীত কার্যাবলী ছাড়াও মানোন্নয়নের জন্য কতিপয় অপরিচিত ও অশ্রুতপূর্ব পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন। যার মধ্যে রয়েছে প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষাদান প্রতি ২০ জন শিক্ষার্থীর জন্য একজন Mentor নিয়োগ, Instant Test, Best Performance Award, সময় মত কোর্স সমাপ্তি ও ফলাফল প্রকাশ, পিছিয়ে পড়াদের সহায়তা ও মেধাবী অথচ অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীর পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধার সন্তানও পোষ্য, অনুন্নত এলাকার শিক্ষার্থী, ক্রীড়াবিদ, সাংস্কৃতিক কর্মী ও প্রতিবন্ধি ও মহিলাদের জন্য বিশেষ স্কলারশিপ বা স্টাডি লোন, ভর্তির আগেই অংক, কম্পিউটিং এ বিনা ফিতে সংশোধনমূলক কোর্স ও ইংরেজী ভাষার দক্ষতা বৃদ্ধির পদক্ষেপ। জীবন ঘনিষ্ট ও বাস্তবমুখী মানসম্পন্ন উচ্চ শিক্ষার কারণেই বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি সমাবর্তনে ডিগ্রিপ্রাপ্ত প্রায় ১০ হাজার গ্রাজুয়েটের মধ্যে কেউ বেকার নেই। আলোচনায় অংশগ্রহণকারী ব্যক্তিবর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের যুগোপযোগি বিষয় নির্বাচন ও মানসম্মত শিক্ষা প্রসারের পদক্ষেপসমূহের কার্যকারিতা ও ব্যাপকতা দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেন।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবর্তিত কতিপয় প্রয়োজনীয় অথচ অপ্রচলিত বিষয় যথা মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং; মাস্টার্স অব বিজনেস এডুকেশন (MBE); ট্যুরিজম ও হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট এবং আর্কিটেকচার শিক্ষার প্রশ্নে আরও ব্যাপক প্রচারণার ওপর তারা গুরুত্ব আরোপ করেন। এসব কোর্স ছাড়াও ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য স্নাতক (ডিগ্রি) প্রোগ্রাম প্রবর্তনে পথিকৃতের ভূমিকার জন্য অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী’র প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

আলোচনায় অংশ নেয়া শিক্ষকরা শিক্ষার মানোন্নয়নে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ গৃহীত পদক্ষেপ ও কর্মসূচির পরিপূরক হিসেবে শিক্ষকদের উচ্চ-শিক্ষা, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ ও নিয়মানুবর্তিতার ওপর জোর দেন। তারা নিজস্ব শিক্ষক এবং কলেজ শিক্ষকদের জন্য মাস্টার্স অব বিজনেস এডুকেশন, এমফিল ও পিএইচডি কোর্স সূলভে প্রবর্তনের দাবি জানান। ছাত্র-ছাত্রীদের সমাজ সেবামূলক কাজে, পরিবেশ সচেতনতা বৃদ্ধিতে এবং সার্টিফিকেট অপেক্ষা প্রকৃত জ্ঞান অন্বেষণে উদ্বুদ্বকরণ ছাড়াও সহ শিক্ষা কার্যক্রম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিষয়ক শিক্ষা বহিঃর্ভূত কার্যক্রম সম্প্রসারণেরও পরামর্শ দেন বক্তারা।

শেয়ার করুন