৩১ ডিসেম্বর ২০২১


গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য অনিরাপদ ছিল ২০২১

শেয়ার করুন

মিডিয়াকর্মীদের জন্য নিরাপদ ছিলোনা ২০২১ সালটি। বিশ্বব্যাপী ৪৬ জন সংবাদকর্মী নিহত হয়েছেন এই বছর। এছাড়া, বর্তমানে বিশ্বজুড়ে চারশ’ ৮৮ জন গণমাধ্যমকর্মী বিভিন্ন দেশে কারাবন্দী রয়েছেন। আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স’ এই তথ্য দিয়েছে। সারাবিশ্বে গণমাধ্যমকর্মীদের গ্রেফতার-হত্যার ঘটনা নিয়ে বার্ষিক রিপোর্ট দিয়ে থাকে এই প্রতিষ্ঠান। তাদের মতে, গত ২৫ বছরের মধ্যে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি সংবাদকর্মী কারাগারে রয়েছেন। গত কয়েক বছরে সাংবাদিক আটক বা গ্রেফতারের সংখ্যা বেড়েছে ২০ শতাংশ। এছাড়া, এবছর সারাবিশ্বে ৬৫ জন সাংবাদিক অপহরণের শিকার হয়েছেন।
সংবাদকর্মীরা নিরাপদ নয় বলা যায় সবদেশেই। নানাভাবে নির্যাতন, নিপীড়ন ও খুনের শিকার হচ্ছে জাতির বিবেক বলে পরিচিত সাংবাদিকরা। রাষ্ট্রের প্রভাবশালী ব্যক্তি থেকে শুরু করে রাজনৈতিক নেতা ও সন্ত্রাসীদের হাতে নির্যাতিত হচ্ছেন অসংখ্য সাংবাদিক। শুধু তাই নয়, খুনেরও শিকার হচ্ছেন অনেকে। প্রতি বছরই সাংবাদিক খুনের ঘটনা ঘটছে। তাই বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্বেই এখন এই পেশা একটা বিরাট চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। সত্যি বলতে কি, সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে আমাদের সভ্যতা, মানবিক মূল্যবোধের উত্থান যতোটুকু হওয়ার কথা ছিলো ততোটুকু হচ্ছে না। প্রতিনিয়ত বাড়ছে মিডিয়ার ব্যাপ্তি; সংবাদকর্মীর সংখ্যা বাড়ছে। এর সাথে পাল্লা দিয়ে এই পেশার উৎকর্ষতাও বাড়ছে। কিন্তু তার চেয়ে বেশি বাড়ছে ঝুঁকি। প্রতি বছরই নানা অনাকাঙ্খিত ঘটনার শিকার হচ্ছে এদেশে সাংবাদিকরা। সাধারণত রাষ্ট্রযন্ত্র ও ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের দ্বারাই সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনা বেশি ঘটেছে বলে জানা যায়। সবচেয়ে দুঃখজনক হচ্ছে, এইসব ঘটনার বিচার হচ্ছে না। এই সংক্রান্ত মামলাগুলোর কার্যক্রম চলছে খুবই ঢিমেতালে। ফলে এইসব মামলার ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কার যথেষ্ট কারণ রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশে সাংবাদিকদের ওপর অযাচিত আক্রমণ, সহিংস ঘটনার বিচারিক তদন্তে দীর্ঘসূত্রতা, বিচারহীনতার সংস্কৃতি গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য চরম বাস্তবতা হিসেবে দেখা দিয়েছে। সেই সঙ্গে রয়েছে অনাকাঙ্খিত আইনের মাধ্যমে স্বাধীন মত প্রকাশের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির অপচেষ্টা।
সাংবাদিকতা একটি ঝুঁকিপূর্ণ পেশা অতীতেও ছিলো; আছে এখনও। আর অন্য যে কোন দেশের তুলনায় আমাদের দেশে এই পেশার ঝুঁকি তুলনামূলকভাবে বেশি। অথচ এ ব্যাপারে সরকারের ভূমিকা সন্তোষজনক নয়। বরং দিনে দিনে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনা বেড়ে চলেছে। ইতোপূর্বে জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহিত সাংবাদিকদের নিরাপত্তা সংক্রান্ত কর্মপরিকল্পনায় বলা হয়েছে, মত প্রকাশের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত। এক্ষেত্রে সাংবাদিকদের নিরাপত্তার জন্য একটা কার্যকর সুরক্ষা কৌশল ও নীতিমালা প্রয়োজন। আমরা চাই, শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশ্বে শতভাগ মুক্ত গণমাধ্যম নিশ্চিত হোক।

শেয়ার করুন