৮ জানুয়ারি ২০২২


লাগামহীন নিত্যপণ্যের ‘পাগলা ঘোড়া’

শেয়ার করুন

ডেস্ক রিপোর্ট : নগরীতে লাগামহীন ভাবে ছুটে চলছে নিত্যপণ্যের পাগলা ঘোড়া। গেল কয়েকদিনে দফায় দফায় বেড়েছে নিত্যপণ্যের দাম। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন সীমিত ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা। বাজারে কেনাকাটায় নাকাল হচ্ছেন মধ্যবিত্তরাও।

নগরীর বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বর্তমানে বাজারে চাল, পেঁয়াজ, তেল, মুরগিসহ বেশিরভাগ পণ্যই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৭০ টাকা থেকে ১৮০ টাকায়।

নগরীর পায়রা এলাকার এক ব্যবসায়ী বলেন, ব্রয়লার মুরগি দাম শুধু বাড়ছেই। বাজারে চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ না থাকায় দাম বেড়েছে বলে জানান তিনি।

মারুফ নামে এক ক্রেতা বলেন, বর্তমানে সব নিত্যপণ্যের দাম চড়া। তেল, পেঁয়াজ ও চালের দাম আমাদের মতো ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। এভাবে দাম বৃদ্ধির কারণে সীমিত আয় দিয়ে সংসার চালানো কঠিন।

মোদিদোকান ঘুরে দেখা গেছে, সিলেটে কোম্পানিভেদে সয়াবিন তেল প্রতি লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৫৫ টাকা থেকে ১৬০ টাকায় আর পাম অয়েল প্রতি লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ টাকায়। বাজারে প্রতি কেজি মোটা চাল (স্বর্ণা-ইরি) বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকা থেকে ৫০ টাকায় আর মিনিকেট ও নাজিরশাইল চাল বিক্রি হচ্ছে ৬৫ টাকা থেকে ৭০ টাকা কেজিতে।

ব্যবসায়ীরা জানান, বাজারে আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজিতে, দেশি পেঁয়াজ মানভেদে বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ টাকায়। দেশি রসুন ৬০ টাকা ও আমদানি করা রসুন ১৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া প্রতি কেজি আলু ২০ টাকা, টমেটো ৫০ টাকা, কাঁচামরিচ ৬০ টাকা, বেগুন ৪০ টাকা, ফুলকপি ৪০ টাকা, বাধাকপি ৩০ টাকা, মুলা ৪০ টাকা, পেঁপে ২৫ টাকা, শিম ৪০ টাকা, গাজর ৫০ টাকা প্রতি কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। লেবু ২০ থেকে ৩০ টাকা প্রতি হালি বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে, সবজির দাম কিছুটা সহনীয় পর্যায়ে থাকলেও মাছ-মাংসের বাজার অস্থির। পাঙ্গাশ মাছ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায়। কই মাছ ১৫০ থেকে ২০০ টাকা, চিংড়ি মাঝারি ৫০০ টাকা, রুই মাছ ২৮০ থেকে ৩৫০ টাকা, কাতল ২৬০ থেকে ২৮০ টাকা, তেলাপিয়া ১৫০ টাকা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া মুরগির ডিম প্রতি হালি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়। বাজারে প্রতি কেজি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৭০ টাকা থেকে ৫৮০ টাকা কেজিতে।

শেয়ার করুন