২১ ডিসেম্বর ২০১৭


শিক্ষকদের স্থান সবার উপরে : শিক্ষামন্ত্রী

শেয়ার করুন

ডেস্ক রিপোর্ট : কতিপয় শিক্ষক শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি। ‘শিক্ষকদের স্থান সবার উপরে’ এই মন্তব্য করে মন্ত্রী শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করার পথ থেকে সকলকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানান।
বৃহস্পতিবার মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসের প্রথম ভবনের উদ্বোধনকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় সিলেট শহরতলির বটেশ্বরস্থ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসের ওই ভবন উদ্বোধন করেন তিনি।

এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘সবার সহযোগিতায় আমরা যুগোপযোগী বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন করেছি। সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে আইন মানতে হবে। শর্ত মেনে সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কেই স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে হবে। এ শর্ত না মানলে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন বাতিল করে দেব। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইনে এ শর্ত না রাখতে অনেকেই চাপ দিয়েছেন, কিন্তু আমরা সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসিনি।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমি অত্যন্ত আনন্দিত, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি তাদের স্থায়ী ক্যাম্পাসের প্রথম ভবনের উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে নতুন যাত্রা শুরু করেছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর আমাদের আস্থা আছে। এটি আরো অনেক দূর এগিয়ে যাবে।’

শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমাদের শিক্ষার মূল লক্ষ্য হচ্ছে নতুন প্রজন্মকে আধুনিক, উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণের সহযোগি হিসেবে গড়ে তোলা। গতানুগতিক শিক্ষায় এটা হবে না, এজন্য প্রয়োজন আমূল পরিবর্তন। একজন শিক্ষার্থীকে শুধু শিক্ষা নয়, সৎ, ভালো ও মূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষ হতে হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষায় সিলেট একসময় পিছিয়ে ছিল। কিন্তু আমরা প্রচেষ্টা চালিয়ে সিলেটকে জাতীয় পর্যায়ে সমানতালে এগিয়ে নিয়ে এসেছি।’

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান ড. তৌফিক রহমান চৌধুরী বলেন, ‘আজ আমাদের জন্য খুবই আনন্দের দিন। স্থায়ী ক্যাম্পাসে আমরা প্রথম ভবনের উদ্বোধন করেছি। আরো কিছুদিনের মধ্যে আমরা এখানে পূর্ণাঙ্গ যাত্রা শুরু করতে চাই।’ তিনি বলেন, ‘মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিকে আমরা বাংলাদেশের সেরা মানসম্মত বিশ্ববিদ্যালয়ের কাতারে নিয়ে যেতে চাই।’

মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির সহকারি প্রক্টর এডভোকেট আব্বাস উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন এনআরবিসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান তমাল এসএম পারভেজ, ব্যাংকটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার ফরাছত আলী, কুয়েতে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) আসহাব উদ্দিন, সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি কামরুল আহসান, সিলেট মহানগর পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ।

মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ফজলুর রব তানভীরের স্বাগত বক্তব্যে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দিন, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক শিব প্রসাদ সেন, প্রফেসর ইমিরিটাস মো. আব্দুল আজিজ, বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ মনসুরুজ্জামান, মুহিতুল বারী রহমান, আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. এম রবিউল হোসেন, স্কুল অব বিজনেস এন্ড ইকোনমিকসের ডিন অধ্যাপক ড. মো. তাহের বিল্লাল খলিফা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নজরুল হক চৌধুরী, মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সুরেশ রঞ্জন বসাক, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক নন্দলাল শর্মা, সিএসই বিভাগের প্রধান অধ্যাপক চৌধুরী মো. মোকাম্মেল ওয়াহিদ, আইন ও বিচার বিভাগের প্রধান সহকারি অধ্যাপক শেখ আশরাফুর রহমান, ইইই বিভাগের প্রধান সহকারি অধ্যাপক মিয়া মো. আসাদুজ্জামান, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন, পরিচালক (অর্থ) মিহির কান্তি চৌধুরী, পরিচালক (প্রশাসন) তারেক ইসলাম, সহকারি রেজিস্ট্রার লোকমান আহমদ চৌধুরী প্রমুখ। আরো উপস্থিত ছিলে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন খান, মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র ফজলুর রহমান ও বিয়ানীবাজার পৌর মেয়র আব্দুস শুকুর প্রমুখ। এছাড়াও বিভিন্ন শিক্ষাবিদ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সুধী সমাজ, সাংবাদিক, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

স্থায়ী ক্যাম্পাসের প্রথম ভবনের উদ্বোধন উপলক্ষে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির সকল শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের মধ্যে উচ্ছ্বাসময় পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

(আজকের সিলেট/২১ ডিসেম্বর/ডি/এসসি/ঘ.)

শেয়ার করুন