আজ শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

নাসিম ছাড়া কোন মনোনয়নপ্রত্যাশীই নেই আরফিরে সভায়

  • আপডেট টাইম : June 30, 2018 4:00 PM

বিশেষ প্রতিবেদক : সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন বিএনপির ৬ প্রার্থী। কিন্তু দল সদস্য সাবেক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকেই মনোনয়ন দেয়। আর এর পর থেকে সিলেট বিএনপিতে শুরু হয় আরিফের বিরোদ্ধে বিদ্রোহ। ক্ষোভে সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম। আর এমন পরিস্থিতিতে শুক্রবার রাতে আরিফের বাসায় জেলা ও মহানগর বিএনপির বর্ধিত সভা আহবান করা হয়। কিন্তু এতে দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী নগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন ছাড়া অন্য ৪ মনোনয়ন প্রত্যাশীকেই দেখা যায়নি। শনিবার সকাল থেকে বিষয়টি ছিলো ‘টক অব দ্যা সিটি’।

জানা যায়, সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মহানগর আওয়ামীলীগ থেকে ৫নেতার নাম প্রস্তাব করা হয় কেন্দ্র। কিন্তু সিলেটের প্রথম মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানকেই বেচে নেন শেখ হাসিনা। আর এর একদিন পরই অন্য ৪ মনোনয়ন প্রত্যাশীকে কামরানের বাসায় চায়ের টেবিলে দেখা যায়। তারা সবাই নৌকাকে বিজয়ী করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

কামরানের চায়ের টেবিলে আসাদ-জাকির-আনোয়ার ও আজাদ

অন্য দিকে, বিএনপির বেলায় দেখা গেলো এর ঠিক উল্টো। দলের প্রার্থী ঘোষনার পর আরিফকে চ্যালেঞ্জ করে মনোনয়ন জমা দেন সেলিম। এমনকি বর্ধিত সভায়ও অনুপস্থিত ছিলেন ৪ মনোনয়ন প্রত্যাশী। এর মধ্যে দুই মনোনয়ন প্রত্যাশীকে দাওয়াত পর্যন্ত দেননি বর্ধিত সভার আয়োজনকারীরা। এনিয়ে দলের অভ্যন্তরে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করেন।

বিএনপির বর্ধিত সভায় অনুপস্থিত ছিলেন- নগর বিএনপির সিনিয়য় সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকি, সহ-সভাপতি রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, যুবদল নেতা সালাহ উদ্দিন রিমন।

বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী সালাহ উদ্দিন রিমন আজকের সিলেটকে বলেন, দলের বর্ধিত সভায় আমাকে কেউ দাওয়াত দেন নি। আরিফের সাথে সিলেট বিএনপির তৃণমূলের নেতাকর্মীরা নেই। বিগত দিনে দলের সাথে যে বৈরি আচরণ করেছেন এর খেসারত তাকে দিতে হবে।

নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম আজকের সিলেটকে বলেন, আমি এই সভায় যাওয়ার প্রশ্নই উঠেনা। গতকাল আমার নির্বাচনী গণসংযোগ ব্যস্থ ছিলাম। এই সভায় অনেকেই দলের প্রতি সম্মান দেখানোর জন্য উপস্থিত হয়েছিলেন। বাস্তবে তারা আমার সাথেই আছেন।

নগর বিএনপির সহ-সভাপতি ও প্যানেল মেয়র (১) রেজাউল হাসান কয়েস লোদী আজকের সিলেটকে বলেন, বর্ধিত সভায় আমাকে দাওয়াত দেয়া হয়নি এজন্য আমি যাইনি।

নগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকি আজকের সিলেটকে বলেন, আমি ব্যস্থ থাকায় বর্ধিত সভায় যেতে পারিনি।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে নগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন আজকের সিলেটকে বলেন, এটি বর্ধিত সভা ছিলো না। দলের সিনিয়য় নেতাদের নিয়ে প্রস্তুতিমূলক সভা ছিল এজন্য সবাইকে দাওয়াত দেয়া সম্ভব হয়নি। তবে বর্ধিত সভায় সবাইকে দাওয়াত দেয়া হবে।

সেলিমের মনোনয়ন জমা দেয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিএনপিতে বদরুজ্জামান সেলিমের অনেক অবদান রয়েছে, একানেই উনি বিক্ষোব্ধ। আমরাবাদি তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহার কের দলের সিদ্ধান্তের প্রতি একাত্বতা পোষন করবেন।

(আজকের সিলেট/৩০ জুন/ডিআর/এসটি/ঘ.)

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ