আজ শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং

মহাসড়কে বাঁশের সাঁকো!

  • আপডেট টাইম : July 29, 2017 6:03 AM

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : দীর্ঘ বন্যায় বিপর্যস্থ দেশের বিভিন্ন রাস্তাঘাটের বেহাল দশা। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া-বড়লেখা আঞ্চলিক মহাসড়কের কয়েকটি স্থানে চলছে না যানবাহন। বন্যার পানিতে এখনো তলিয়ে আছে মহাসড়কের বিভিন্ন স্থান। কোথাও আবার দেখা যাচ্ছে বাঁশের সাঁকো। বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়া স্থানগুলো পারাপারের একমাত্র ভরসা সাঁকো।

হাকালুকি হাওর তীরবর্তী কুলাউড়া, জুড়ি ও বড়লেখা উপজেলা। এই তিন উপজেলার আঞ্চলিক মহাসড়কের বেহাল অবস্থা। সড়কগুলো বার বার বানের পানিতে তলিয়েই সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত। ফলে জনসাধারণকে পোহাতে হচ্ছে দুর্ভোগ। রাস্তার অনেক জায়গায় সড়কের ওপর সৃষ্ট গর্তে পানি থাকায় গাড়ির চালক ও পথচারিরা অনেকটা ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছেন।

সরজমিনে মহাসড়কের এমন চিত্র চোখে পড়ে। মৌলভীবাজার থেকে বড়লেখা যাওয়ার পথে কুলাউড়া শহর পাড়ি দিলে দেখা মিলে সড়কের এমন বেহাল দশা। কুলাউড়া থেকে বড়লেখা যাওয়ার পথে ছোট বড় অন্তত ২০-২৫ টি স্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। তবে কুলাউড়া-বড়লেখা আঞ্চলিক মহাসড়কের পশ্চিম হাতলিয়া এলাকায় ৪টি স্থানে বন্যার পানি ওঠার কারণে সড়কের বিভিন্ন জায়গায় বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

 

দুই মাস ধরে পানিতে নিমজ্জিত থাকার অজুহাতে সড়কের গর্তগুলো ভরাটের কোন ব্যবস্থা না নেয়ার অভিযোগ উঠেছে সড়ক ও জনপথ বিভাগের বিরুদ্ধে। তবে দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে সড়কের ডুবে যাওয়া অংশ পারাপারের জন্য সড়কের পাশে বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করেছে স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়া সড়কে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় যানবাহন চলাচলা স্বাভাবিক হচ্ছে না। ডুবে যাওয়া অংশ পারাপারে অতিরিক্ত ভাড়াও দিতে হচ্ছে। এজন্য জনদুর্ভোগ লাঘবে এলাকার কয়েকজন সড়কের পাশে বাঁশের সাকোঁ তৈরি করে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথের মৌলভীবাজার কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মিন্টু রঞ্জন দেব নাথ জানান, আমরা ওই সড়কের ১০টি স্থান বন্যার পানিতে বড় ধরনের ক্ষতি এবং ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করে তা সংস্কারের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। বরাদ্দ পেলেই সংস্কার কাজ দ্রুত শুরু হবে।

 

(আজকের সিলেট/২৯ জুলাই/ডি/এসটি/ঘ.)

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ