আজ শনিবার, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ধর্ষণ মামলায় পংকজ গুপ্তের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

  • আপডেট টাইম : October 1, 2018 10:46 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : তারাপুর চা বাগানের বর্তমান সেবায়েত পংকজ কুমার গুপ্তের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। সোমবার বিকেলে সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুহিতুল হক এই মামলার অভিযোগ গঠন করেন। বাদীর আইনজীবী এডভোকেট শাহ কামাল মোহাম্মদ তৈয়ব সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, তারাপুর চা বাগানের অফিসে এক সন্তানের জননী আদিবাসী গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার অভিযোগ গঠনের ধার্য্য তারিখ ছিল  সোমবার। ঐদিন  বিকেলে সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুহিতুল হকের আদালতে উভয় পক্ষের আইনজীবীরা অভিযোগ গঠনের শুনানীতে অংশ নেন। আসামী পংকজ কুমার গুপ্তের বিরুদ্ধে আদালত নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ (৪) (খ) ধারায় অভিযোগ গঠন করেন। এ সময় মামলার বাদী আদালতে উপস্থিত ছিলেন। শুনানীতে বাদী পক্ষে এডভোকেট শাহ কামাল মোহাম্মদ তৈয়ব ও এডভোকেট এম গফফার, আসামী পক্ষে এডভোকেট এমাদ উল্লাহ শহিদুল ইসলাম শাহীন ও এডভোকেট শাহ মোশাহিদ আলী অংশ নেন।
আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের বড়নগর গ্রামের আদিবাসী খাসিয়া তরুনী ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে এক মুসলিম তরুণের সাথে ধর্মীয় বিধানমতে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের ৪ বছরের এক পুত্র সন্তান রয়েছে। স্বামী চাকুরীর সুবাদে ঢাকায় বসবাস করলেও আদিবাসী গৃহবধূ তারাপুর চা বাগানের একটি টিনসেড ঘরে বসবাস করতেন। চা বাগানের অফিস ও বাংলো থেকে প্রায়ই বাগানের বর্তমান সেবায়েত পংকজ কুমার গুপ্ত ঐ গৃহবধূর দিকে তাকিয়ে থাকতেন। মাঝে মধ্যে গৃহবধূকে পংকজ তার সুবিদবাজারের বাসায় যেতে বলতেন কিন্তু এতে অস্বীকৃতি জানান ঐ গৃহবধূ। গত বছরের ২৭ নভেম্বর সকালে পংকজ গৃহবধূর ঘরের সামনে এসে বকেয়া বিদ্যুৎ বিলের কথা বলার জন্যে অফিসে যাবার কথা বলে। সকাল ৯ টায় চা বাগানের অফিসে বিদ্যুৎ বিলের ব্যাপারে কথা বলতে গেলে গৃহবধূর হাতে নগদ অর্থ তুলে দিয়ে কুপ্রস্তাব দেন পংকজ। এক পর্যায়ে দরজা বন্ধ করে চাকু বের করে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে গৃহবধূকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে সেবায়েত পংকজ। বিষয়টি গৃহবধূ তার স্বামীকে জানান। পরে ওসমানী হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার ওসিসিতে ভর্তি হন। ২৯ নভেম্বর ওসিসি থেকে গৃহবধূকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। থানা পুলিশ এ ঘটনায় মামলা গ্রহণ না করায় ৬ ডিসেম্বর সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ বাদী হয়ে দরখাস্ত মামলা করেন। দরখাস্ত মামলা নং ৭৪৪/২০১৭। আদালতে দায়েরকৃত মামলার ৫ পৃষ্ঠার এজাহারে মামলার বাদী নির্যাতিতা গৃহবধূ ঘটনার রোমহর্ষক বর্ণনা দেন। পরে আদালতের নির্দেশে জেলা প্রবেশন অফিসার তমির উদ্দিন ঘটনার তদন্ত করে আদালতে তদন্ত প্রবিদেন জমা দেন।
এদিকে সিলেটে চা বাগানে সেবায়েত পংকজ কর্তৃক আদিবাসী গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর সিলেট জুড়ে তোলপাড় শুরু হয়।
বাদীর আইনজীবী এডভোকেট শাহ কামাল মোহাম্মদ তৈয়ব বলেন, আসামী পংকজের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ (৪) (খ) ধারায় অভিযোগ গঠন করেন আদালত। এর মধ্য দিয়ে মূলত মামলার বিচার কার্যক্রম শুরু হল। পরবর্তী তারিখে স্বাক্ষ্য গ্রহণ করা হবে। এটি একটি আলোচিত মামলা। তিনি জানান, আদালতে আমরা ন্যায় বিচার প্রার্থনা করেছি।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ