আজ শুক্রবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং

খোয়াই নদীতে ‘ঝুকিপূর্ণ’ দুটি বেইলী ব্রীজ

  • আপডেট টাইম : October 22, 2018 5:55 AM

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জ শহরের খোয়াই নদীতে নির্মিত দুটি বেইলি ব্রীজ ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। জীবনের ঝুকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন ও সাধারণ লোকজন। যে কোন সময় ভেঙ্গে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। আর সওজ কর্র্র্তৃপক্ষ বলেছেন একটি প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে প্রকল্পটি পাশ হলেই দুটি ব্রীজ নির্মান করা হবে।

জানা গেছে, হবিগঞ্জ শহরের প্রধান সড়ক চৌধুরী বাজার এলাকায় পাশাপাশি কিবরিয়া ব্রীজ ও উমদা মিয়া ব্রীজ দিন দিন ঝুকিপূর্ণ হয়ে উঠছে। জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতিদিন শতশত যানবাহন ও হাজার হাজার লোকজন চলাফেরা করছে। ব্রীজের মধে লাগানো স্লাব উঠে গেছে অনেক স্থানে স্লাব ভেঙ্গে গেছে। পাশাপাশি ব্রীজের নিচে পিলার ভেঙ্গে গেছে।

জোরাতালি দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে। সড়ক বিভাগ দুটি ব্রীজের পাশে ঝুকিপূর্ণ সাইটবোর্ড লাগালেও বিকল্প কোন ধরনের ব্রীজ না থাকায় জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতিদিন চলাফেরা করতে হচ্ছে যানবাহন গুলোকে। তাদের আশঙ্কা যে কোন সময় ব্রীজ ভেঙ্গে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এতে করে মানুষের প্রাণহানীর ঘটনা ঘটতে পারে।

সিএনজি (অটোরিক্সা) চালক মাসুক মিয়া জানান, প্রতিদিন ব্রীজের উপর দিয়ে জীবনের ঝুকি নিয়ে চলাচল করতে হয়। খোয়াই নদীতে পানি বাড়তে থাকলে ব্রীজ নড়াছড়া করে। যে কোন সময় ভেঙ্গে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ট্রাক চালক রমজান আলী জানান, ব্রীজের উপর দিয়ে ট্রাক চলাচল করার সময় মনে হয় ভেঙ্গে পড়ে যাচ্ছে। যে কোন সময় ব্রীজ ভেঙ্গে মানুষের প্রাণহানীসহ বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই শীঘ্রই ব্রীজটি সংষ্কার অথবা নতুন ব্রীজ করার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানাচ্ছি।

হবিগঞ্জ বৃন্দাবন কলেজের শিক্ষার্থী মোস্তাক আহমেদ জানান, কলেজে আসার যাওয়ার সময় প্রতিদিনই ব্রীজের উপর দিয়ে আসতে হচ্ছে রিক্সা নিয়ে ব্রীজে উঠলেও ভয়ে ভয়ে যেতে হয় কেননা ব্রীজের অনেক স্থানের স্লাবব ভেঙ্গে গেছে। তবে বিকল্প কোন ব্রীজ না থাকায় জীবনের ঝুকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। সে জানায় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আগেই যেন দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্রীজ দুটি সংস্কার করা হয়।

উমেদনগর কিবরিয়া ব্রীজ সিএনজি অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি তারেশ চৌধুরী জানান, প্রতিদিন ব্রীজ দিয়ে শতশত যান বাহন চলাচল করতে হয়। প্রতিটি গাড়িই অত্যন্ত ঝুকি নিয়ে পারাপার হতে হয়। এতে করে যাত্রীরা চরম ঝুকির মধ্যে থাকে।

তিনি বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে ব্রীঝ দুটি সংস্কারের জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তাই দ্রুত সময়ের মধ্যে দুটি ব্রীজ সংস্কার করার জন্য আমি সংগঠনের পক্ষ থেকে দাবি জানাই।

স্কুল শিক্ষিকা পিয়ারা বেগম জানান, ব্রীজ দুটি অনেক দিন হয়ে গেছে তাই তাদের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও সংষ্কার কোন ধরনের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়নি। তাই আমরা প্রতিদিন ঝুকির মধ্যে দিয়ে পারাপার হতে হয়।

তিনি বলেন, যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

হবিগঞ্জ সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম জানান, দুটি ব্রীজ নতুন করে কংক্রিট দিয়ে তৈরীর জন্য আমরা একটি প্রকল্প গ্রহন করেছি। আশাকরি প্রকল্পটি পাশ হলেই দুটি ব্রীজ নির্মান করা হবে। তিনি বলেন আপাতত দুটি ব্রীজ সংস্কারের ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ