আজ শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং

সিলেটে যাত্রীদের সাথে প্রতারণা করছে পাঠাও

  • আপডেট টাইম : May 12, 2019 9:15 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক

সিলেট : দেশের অগ্রগতির সাথে অগ্রতি হয়েছে দেশর পরিবহন ব্যবস্থারও। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে গণপরিবহণের সাথে বাড়ছে রাইড শেয়ারিং কোম্পানী। এ যাত্রায় সব চেয়ে শীর্ষে রয়েছে পাঠাও। কিন্তু যাত্রীরা কি আদৌ সেবা পাচ্ছেন না প্রতারিত হচ্ছেন এমন প্রশ্ন থেকেই যায়।

বাস্তব চিত্র হচ্ছে ভাড়ার তালিকা ও ডিসকাউন্টের নামে যাত্রীদের সাথে প্রতারণা করছে রাইড শেয়ার রিং প্রতিষ্ঠান পাঠাও। পাঠাওয়ের এপসে একই জায়গায় দুই ধরনের দুরত্ব ও ভাড়া দেখাচ্ছে। যে অংকের ডিসকাউন্ট দেয়ার প্রতিশ্রতি দেয়া হচ্ছে তা দেয়া হচ্ছেনা। এনিয়ে প্রায় প্রতিনিদনই রাইডারদের সাথে যাত্রীদের বাকবিতান্ড হচ্ছে। তবে রাইডাররা বলছেন এটি কোম্পানী নিয়ন্ত্রণ করে তাদের কিছু করার নেই। আর যাত্রীরাও এ থেকে প্রতিকার পাচ্ছেন না।

রোববার সকালে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যাত্রী নগরীর মজুমদারী থেকে পাঠানটুলাস্থ জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান। হাসপাতালে পৌঁছার পর হিস্ট্রিতে দেখায় এ যাত্রার দুরত্ব ৪.৬৮ কি.মি এবং ভাড়া ৫৬ টাকা। এবং ডিজিটাল পেমেন্টে ৭০% ডিসকাউন্ট। ৫৬ টাকায় ৭০% ডিসকাউন্ট দিয়ে এখানে ভাড়া আসার কথা ১৭ টাকা। কিন্তু ৭০% ডিসকাউন্ড দেখিয়ে তার কাছ থেকে ভাড়া আদায় করা হয় ২৬ টাকা।

এই রাইডের কিছুক্ষণ পরই একই যাত্রী আবারো এখান থেকে মজুমদারীতে রাইডের জন্য রিকুয়েস্ট পাঠান এবং নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছার পর গন্তব্যের দুরত্ব দেখায় ৩.৩৬ কি.মি., এবং ভাড়া ৪৪ টাকা।

এাখন প্রশ্ন হচ্ছে ১৫/২০ মিনিটের ব্যবধানে একটি লোকেশনে একই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার পর কিভাবে দুরত্ত ও ভাড়া পরিবর্তন হয়। এর যে অংকের ডিসকাউন্ট দেখায় কেন এর বেশী নেয়া হয়।

এর কারন খোঁজতে যোগাযোগ করা হয় পাঠাও সিলেট অফিসে।

কিন্তু পাঠাও সিলেট অফিসের ০৯৬৭৮ ২০২২০২ নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে রাইসা নামে একজন ফোন রিসিভ করলেও তিনি বক্তব্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ