আজ মঙ্গলবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের বেহাল দশা

  • আপডেট টাইম : জুলাই ৩১, ২০১৯ ৭:০০ পূর্বাহ্ণ

উপজেলা প্রতিনিধি, তাহিরপুর

সুনামগঞ্জ : পাহাড়ি ঢলের পানিতে গুরুত্বপূর্ণ তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের আনোয়রপুর ব্রীজের সংযোগ সড়কটির কিছু অংশ বেশী ভেঙ্গে যায়। এরপর থেকে সিএনজি, লেগুনাসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলাচল এবারেই বন্ধ রয়েছে। যানবাহন বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থী, চাকরীজীবি, পর্যটক, ব্যবসায়ীসহ সর্বস্থরের মানুষ ভাঙ্গা অংশে পায়ে হেঁটে চলাচল করছে। ঢলের পানি কমলেও সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের গাফিলতি, দায়িত্বহীনতার কারণে শুরু হয়নি তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কে সরাসরি যান চলাচল। তাই ভেঙ্গে ভেঙ্গে যাতায়াত করতে হচ্ছে যাত্রীদের। পানি কমে গেলেও ভাঙা সড়কটি দ্রুত সংস্কার না হওয়ায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করছেন চলাচলকারী মানুষজন।

জানা যায়, গত ২৪ জুন থেকে কদিন ভারী বৃষ্টিপাতে ভারতের মেঘালয়ের ভারী বৃষ্টিপাতে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়। নদী দিয়ে নেমে আসা ঢলের অতিরিক্ত পানি প্রবলবেগে প্রবাহিত হয় আনোয়ারপুর ব্রীজের পূর্ব পাশে সড়কের নীচু স্থান দিয়ে পানির তোড়ে ভেঙ্গে গেছে প্রায় ২শ মিটার সড়ক। এরপর থেকে কোন ধরনের যানবাহন তাহিরপুর উপজেলা সদরে আসছে না।

এদিকে, ভাঙ্গা সড়ক মেরামত না করায় বিপাকে পড়েন পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ মান্নান। তিনি গত রোববার পারিবারিক ভ্রমনে তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাট এসেছিলেন। আসার পথে আনোয়ারপুরের ব্রীজ সংযোগ রাস্তার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকার কারণে রাস্তার ভাঙ্গা স্থানে নেমে তাহিরপুর উপজেলা সদরে না এসেই নৌকাযোগে টেকেরঘাটে যান। এসময় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকার বিষয়টি তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুলসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ মন্ত্রী মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে মন্ত্রী দ্রুত দুর্ভোগ সমাধানের আশ্বাস দেন।

সিএনজি চালক জুবায়ের জানান, বন্যার পর থেকেই তাহিরপুর থেকে সুনামগঞ্জ যাত্রী পরিবহন বন্ধ করে বসে আছি। গেলেও আনোয়ারপুর ব্রীজ পর্যন্ত যেতে পারি। গাড়ি নিয়ে সরাসরি সুনামগঞ্জ যেতে পারছি না। তাই খুব কষ্টের মাঝে আছি।

পর্যটক শফিউল ইসলাম বলেন, এই সড়কটি ভাঙ্গা না থাকলে সহজে গাড়ি নিয়ে উপজেলা সদরে যেতে পারতাম। গুরুত্বপূর্ন এই সড়কটি দ্রুত মেরামত করার দাবী জানান তিনি।

পণ্য পরিবহনের গাড়ি চলাচল না করতে পারায় শত শত ব্যবসায়ীরা পড়েছেন চরম বিপাকে জানিয়ে ব্যবসায়ী সাদেক আলী বলেন, সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকার কারণে পণ্য পরিবহনের খরচের পরিমান বেশী হয়। এবিষয়ে তাহিরপুর উপজেলা প্রকৌশলী সাইদুল্লা মিয়া বলেন, জনৈক ঠিকাদার সড়কটির মেরামত কাজ করছিলেন, কাজ চলাকালীন সময় পাহাড়ি ঢলে সড়কটি ভেঙ্গে যায়। যত দ্রুত সম্ভব সড়কটি মেরামত করে যানবাহন চলাচলের উপযোগী করা হবে।

তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন, তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের আনোয়ারপুর ব্রীজ সংযোগ ভাঙ্গার বিষয়টি পরিকল্পনামন্ত্রী মহোদয়কে অবহিত করেছি। তিনি সংস্কারের জন্য আশ্বাস দিয়েছেন। দ্রুত সংস্কার না হলে এই সড়ক দিয়ে চলাচলা করতে গিয়ে সর্বস্থরের জনসাধারন চরম দুভোর্গের শিকার হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ...