আজ মঙ্গলবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

কয়লায় ২০০, মরা পাথরে ৩০০

  • আপডেট টাইম : July 25, 2019 9:45 AM

উপজেলা প্রতিনিধি, তাহিরপুর

সুনামগঞ্জ : সম্প্রতিকালে বন্যার ফলে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর সীমান্তে একাধিক পাহাড়ি ছড়া ও সীমান্তনদী দিয়ে প্রবল বর্ষণে ভেসে আসছে কয়লা ও মরা পাথর। ইতোমধ্যে এসব কুড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে চলেছেন এলাকার কয়েক হাজার সুবিধাবঞ্চিত দরিদ্ররা।

তাদের রিজিক-রুটিতেও ভাগ বসাতে শুরু হয়েছে চাঁদাবাজি। ক্রেতাদের জন্য কয়লায় ২০০টাকা আর মরাপাথরে ৩০০টাকা হারে চাঁদা নির্ধারণ করে দিয়েছে একটি চাঁদাবাজ চক্র। এসব কুড়ানো কয়লা বা মরা পাথর বিক্রি করতে গেলে ক্রেতাদের নিকট সীমান্তের পয়েন্টে হাত পাতেন চাঁদাবাজরা।

যে কারনে রোদ বৃষ্টি বজ্রপাত উপেক্ষা করে হারভাঙা খাটুনির পরও চাঁদাবাজদের হাত প্রসারিত থাকায় ন্যায়মুল্য থেকে কুড়িয়ে তোলা বাংলা কয়লা বা মরা পাথর বিক্রির ন্যায্য মুল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন সুবিধা বঞ্চিত মানুষেরা।

প্রতিটন বাংলা কয়লা ২০০ থেকে ২৫০ টাকা, প্রতিট্রলি মরা পাথররের জন্য ২৫০ থেকে ৩০০’শ টাকা হারে সেটেল বা চাঁদা দিতে হয় ক্রেতাদের চাঁদা আদায়ে থাকা নির্ধারিত সোর্স বা এজন্ট গ্রুপকে। চাঁদা না পেলেই এসব কুড়িয়ে তোলা বাংলা কয়লা বা মরা পাথর হয়ে যায় অবৈধ কিংবা চোরাই মালামাল।

অতচ দিনভর সীমান্তের বুরুঙ্গা, বড়ছড়া, ট্যাকেরঘাট, লাকমা, লালঘাট, বাঁশতলা, চারাগাঁও, কলাগাঁও পাহাড়ি ছড়ায় বাংলাদেশ অভ্যন্তরে হাজারো নারী পুরুষ কিশোর কিশোরী জাল, চালুনি, বেলচা, কুদাল দিয়ে হাতে কুড়িয়ে উক্তোলন করেন ভেসে আসা বাংলা কয়লা বা মরা পাথর। উক্তোলনকালে এসব বাংলা কয়লা বা মরা পাথর অবৈধ বা চোরাই মালামাল না হলেও চাঁদাবাজ চক্রের থাবায় বিক্রির সময় চাঁদা না পেলেই এসব কয়লা , মরা পাথর হয়ে হয়ে যায় অবৈধ বা চোরাই মালামাল।

সরজমিনে গেলে দেখা যায় চারাগাঁও ছড়ার বাংলাদেশ অভ্যন্তরে সদ্য বিধবা এক মা ছড়ার ওপারে ভেসে আসা কয়লা কুড়াচ্ছেন আর ছড়ার অপর পাড়ে বসে সীমান্তের সেই ক্ষুদে রাজকন্যা মায়ের কুড়ানো ভেসে আসা কয়লা পাহাড়া দিচ্ছেন। একই ভাবে সীমান্তের বিভিন্ন ছড়া গুলোতে দিনভর কয়লা বা মারা পাথর কুড়ান হাজারো মানষজন।

সীমান্তের পাহাড়ি ছড়ায় বাংলা কয়লা ও মরা পাথর উক্তোলকারীদের অভিযোগ, সুবিধাবঞ্চিত মানুষজনের কুড়ানো কয়লার নাম ‘বাংলা’ কয়লা হলেও চাঁদাবাজদের কারনে সেই কুড়ানো কয়লার ন্যায্য মুল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন সীমান্তের সুবিধাবঞ্চিত হাজারো হতদরিদ্র মা বাবা, কিশোর-কিশোরীরা।

চাঁদাবাজ চক্রের বাঁধার মুখে গত কয়েকদিন ধরে ভয়ে বাংলা কয়লা বা মরা পাথর কেনা বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। হতদরিদ্ররা পড়েছেন নানা শংকায়, কারন ছড়ার তীরে, বাড়ির উঠোনে রাখা এসব কুড়ানো কয়লা বা মরা পাথর এখনই বিক্রি করতে না পারলে আবারো ঢল বা বণ্যা হলে সবই ভেসে যাবে হাওর নদীর পেঠে।

এসব চাঁদাবাজ চক্রের পৃষ্টপোষক এবং চাঁদাবাজীর আয়ে সুবিধাভোগীদের থাবা থেকে রেহাই পেতে সুবিধাবঞ্চিত লোকজন জেলা প্রশাসন, ২৮ বর্ডারগার্ড ব্যাটালিয়ন (বিজিবি) বাংলাদেশ’র অধিনায়ক, পুলিশ সুপার ও সীমান্তরক্ষায় নিয়োজিত বিজিবি এমনকি গণমাধ্যমের সহায়তা চেয়েছেন।

ছবিগুলো সুনামগঞ্জ সীমান্তের তাহিরপুরের চারাগাঁও স্থল শুল্ক স্টেশনের চাড়াগাঁও ও ট্যাকেরঘাট ছড়া থেকে মঙ্গলবার ক্যামেরাবন্দি করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ