আজ শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

মৃত্যুর আগে দেহ দান করে গেছেন সুপ্রিয় চক্রবর্তী

  • আপডেট টাইম : July 30, 2019 9:09 AM

ডেস্ক রিপোর্ট

সিলেট : মৃত্যুর আগেই নিজের দেহদান করে গেছেন সিলেটের বিশিষ্ট ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সুপ্রিয় চক্রবর্তী রঞ্জু। টাঙ্গাইলের কুমুদিনী হাসপাতালে নিজের দেহদান করে যান সিলেটের সবার ‘প্রিয় রঞ্জু দা’। আর চক্ষু দান করে যান সন্ধানীতে।

সুপ্রিয় চক্রবর্তীর ইচ্ছা অনুযায়ী তাঁর দেহ ও চক্ষু দান করা হবে বলে প্রয়াতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে।

সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ঢাকার বারডেম হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন এই আইনজীবী। মস্তিস্কের রক্তক্ষরণজনিত কারণে তিনি গত ১৩ জুলাই ওই হাসপাতালে ভর্তি হন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৭৯ বছর।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী মানবাধিকার নেত্রী সুলতানা কামাল ও একমাত্র মেয়ে সুদেষ্ণা চক্রবর্তী দিয়াসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহি রেখে গেছেন।

এদিকে, মঙ্গলবার বিকেল ৫টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত নগরীর লামাবাজার এলাকার প্রয়াতের বাড়িতে সুপ্রিয় চক্রবর্তীর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে বলে জানিয়েছেন সম্মিলিত নাট্য পরিষদ, সিলেটের সভাপতি মিশফাক আহমদ মিশু। প্রয়াতের মরদেহ সিলেট আনা হবে না বলেও জানিয়ছেন তিনি।

সাবেক ক্রিকেটার সুপ্রিয় চক্রবর্তী মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত সিলেট জেলা ক্রিকেট কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। নিজের প্রতিষ্ঠিত ইয়ুথ সেন্টার ক্লাবের সভাপতি ছিলেনও তিনি। তিনি সম্মিলিত নাট্য পরিষদ, সিলেটের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ, সিলেটের আহ্বায়ক হিসেবে সিলেটে রবীন্দ্র চর্চায় ভূমিকা রাখেন।

সিলেট সাহিত্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও নৃত্যশৈলী সিলেটের উপদেষ্টা সুপ্রিয় চক্রবর্তী সিলেট জেলা কর আইনজীবী সমিতির দুইবারের নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন। এছাড়াও তিনি সিলেট ডায়াবেটিক সমিতি, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর আজীবন সদস্য ও সিলেট ষ্টেশন ক্লাবের জীবন সদস্য ছিলেন।

সুপ্রিয় চক্রবর্তীর বাবা সুখময় চক্রবর্তী ও মা বীণাপানি চক্রবর্তী। তিন ভাই-তিন বোনের মধ্যে সুপ্রিয় চক্রবর্তী পঞ্চম সন্তান। তাঁর আদিনিবাস হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচংয়ে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ