আজ বুধবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং

শোভনকে বিদায় দিতে বিমানের দরজায় ছাত্রলীগের কাণ্ড, তোলপাড়

  • আপডেট টাইম : September 8, 2019 11:01 AM

ডেস্ক রিপোর্ট

সিলেট : সিলেটে চার দিনের সফর শেষে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন প্লেনে চেপে ঢাকায় ফেরার সময় ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লঙ্কাকাণ্ড ঘটিয়েছেন সংগঠনটির নেতারাকর্মীরা। তারা আন্তর্জাতিক এ বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থার সব জাল ছিঁড়ে অ্যাপ্রনে (পার্কিংস্থল) ঢুকে প্লেনে পর্যন্ত উঠে পড়েন শোভনকে বিদায় জানাতে। এই ঘটনায় সিলেটজুড়ে তোলপাড় চলছে। রইরই পড়ে গেছে বিমানবন্দরে নিয়োজিত সব সংস্থায়।

গত বৃহস্পতিবার রাত ৮টা ৩৫ মিনিটে বেসরকারি একটি এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে শোভন ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা হওয়ার সময় এই কাণ্ড ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও বিমানবন্দরের একাধিক কর্মকর্তা জানান, ছাত্রলীগ সভাপতি বিমানবন্দরে এলে তাকে বিদায় জানাতে শত শত নেতাকর্মী ওসমানীতে জড়ো হন। এসময় তারা ভিআইপি ফটক ঠেলে ডিপারচার লাউঞ্জ পার হয়ে অ্যাপ্রনে ঢুকে যান, এমনকি কিছু কিছু নেতাকর্মী প্লেনে পর্যন্ত উঠে পড়েন।

তখন ভিআইপি ফটকে দায়িত্বে ছিলেন এভিয়েশনের কর্মী আবুল হাসান। তাকে ঠেলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা প্লেনে গিয়ে ফুল দিয়ে ছাত্রলীগ সভাপতিকে বিদায় জানান। এসময় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন ওই ফ্লাইটের অন্য যাত্রীরা। আতঙ্কে বেরিয়ে পড়েন ফ্লাইট পরিচালনায় থাকা বিদেশি পাইলট।

তখন নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা নজরুল ইসলামসহ এভিয়েশনের অন্য কর্মকর্তারা দৌড়ে গিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের টেনে প্লেন থেকে বের করে আনেন।

ঘটনাটি প্রথমে জানাজানি না হলেও ছাত্রলীগের ওই নেতাকর্মীরা শোভনকে প্লেনে উঠে বিদায় জানানোর ছবি ফেসবুকে পোস্ট করতেই আলোচনা শুরু হয়। প্রশ্ন ওঠে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা নিয়েও।

ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, ছাত্রলীগ সভাপতি ক্যাটাগরিতে ভিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহার প্রশ্নবিদ্ধ। কারণ তিনি কোনো সরকারি কর্মকর্তা বা রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ কেউ নন। বিমানবন্দরে আমর্ড পুলিশ, আনসার সদস্য ও জরুরি প্রয়োজনে ক্রাইসিস রেসপন্স টিম (সিআরটি) কাজ করে থাকে। কিন্তু ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা অ্যাপ্রনে ঢুকে প্লেনে উঠে পড়ায় সেই বাহিনীগুলোর সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীলতা প্রশ্নের মুখে পড়েছে।

ওসমানী বিমানবন্দর সূত্র জানায়, নিরাপত্তার জাল ছিঁড়ে অ্যাপ্রনে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের প্রবেশের ঘটনায় ওসমানী বিমানবন্দর ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদকে ভিডিও ফুটেজসহ ঢাকায় ডাকা হয়েছে। এ ঘটনার পর নড়েচড়ে বসেছে সরকারের সবগুলো সংস্থা। তারা ঘটনার ভিডিও ফুটেজও সংগ্রহ করেছে বলে জানায় ওই সূত্র।

এ বিষয়ে জানতে ওসমানী বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদ ও নিরাপত্তা কর্মকর্তা নজরুল ইসলামের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ