আজ শুক্রবার, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

নির্দিষ্ট স্থানে কোরবানির পশু জবাই করতে সিসিকের আহ্বান

  • আপডেট টাইম : September 2, 2017 7:01 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : আজ পবিত্র ঈদুল আযহা। ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত হয়ে বিভিন্ন ধরনের পশু কোরবানি দিয়ে মহান আল্লাহতায়ালার নৈকট্য লাভের চেষ্টা করবে মুসলিম উম্মাহ। সেই সাথে পরিবেশ ঠিক রেখে যাতে কোরবানি করা যায়, সেদিকে দৃষ্টি দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। সিলেটও এর ব্যতিক্রম নয়। পশু কোরবানির জন্য সিলেট মহানগরীতে ২৭টি স্থান নির্ধারণ করেছে সিটি করপোরেশন (সিসিক)। এসব নির্ধারিত স্থানেই কোরবানি দিতে নগরবাসীর প্রতি আহবানও জানিয়েছে সিসিক।

সিসিক সূত্র জানায়, নগরীকে পরিচ্ছন্ন রাখা এবং কোরবানির বর্জ্য দ্রুততার সাথে পরিষ্কার করার স্বার্থেই পশু কোরবানির জন্য ২৭টি ওয়ার্ডে ২৭টি স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে।

সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে গণমাধ্যম পশু কোরবানির জন্য নির্ধারিত স্থানের একটি তালিকা পেয়েছে।

নির্ধারিত ২৭টি স্থান হচ্ছে- ১নং ওয়ার্ডে অর্ণব ২১ মীরের ময়দান, ২নং ওয়ার্ডে ব্যাংক কলোনীর মাঠ, ৩নং ওয়ার্ডে ওসমানী মেডিকেল কলেজ কলোনীর মাঠ, ৪নং ওয়ার্ডে আম্বরখানা সরকারি কলোনীর মাঠ, ৫নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর অফিস সংলগ্ন খোলা মাঠ, ৬নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর অফিসের সামনে, ৭নং ওয়াড জালালাবাদ মরিলের মাঠ, ৮নং ওয়ার্ডে পাঠানটুলা মসজিদ সংলগ্ন মাঠ, ৯নং ওয়ার্ডে জবাইখানা-এতিম স্কুল রোড, ১০নং ওয়ার্ডে কলাপাড়া ওয়ার্কশপের মাঠ, ১১নং ওয়ার্ডে লালাদিঘীর পাড় বালুর মাঠ, ১২নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলরের নিজ বাসার সংশ্লিষ্ট স্থান, ১৩নং ওয়ার্ডে কাজিরবাজার মাদরাসা মাঠ, ১৪নং ওয়ার্ডে ছড়ারপার স্কুল গলি (মাজার গলি), ১৫নং ওয়ার্ডে শাহজালাল জামিয়া স্কুল এন্ড কলেজ মাঠ, ১৬নং ওয়ার্ডে সওদাগর টুলা, ১৭নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলরের নিজ বাসার সংশ্লিষ্ট স্থান, ১৮নং ওয়ার্ডে আগপাড়া জামে মসজিদ সংলগ্ন মাঠ, ১৯নং ওয়ার্ডে রায়নগর আলমটুলা, ২০নং ওয়ার্ডে সৈয়দ হাতিম আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ, ২১নং ওয়ার্ডে শেখ রাসেল পুনর্বাসন কেন্দ্র-লামাপাড়া, ২২নং ওয়ার্ডে স্প্রিং টাওয়ার সংলগ্ন মাঠ, ২৩নং ওয়ার্ডে আব্দুল হামিদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২৪নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলরের নিজ বাসার সংশ্লিষ্ট স্থান (বোরহানউদ্দিন মাজার রোড), ২৫নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলরের নিজ বাসার সংশ্লিষ্ট স্থান, ২৬নং ওয়ার্ডে কদমতলি পয়েন্ট এবং ২৭নং ওয়ার্ডে গোটাটিকর প্রাইমারি স্কুল মাঠ।

পশু কোরবানির নির্ধারিত এসব স্থানে সামিয়ানা টানিয়ে রাখা হবে। থাকবে দক্ষ কসাইও। তবে পশু কোরবানির জন্য নির্দিষ্ট স্থান নির্ধারণ করা হলেও, এসব স্থানে এসে কতোজন নগরবাসী কোরবানি দেবেন, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামীম বলেন, ‘গত বছর নির্ধারিত স্থানে এসে একজনও কোরবানি দেননি। এ বছর কতোজন আসেন, তা বলা যাচ্ছে না।’

তবে নির্ধারিত স্থানে নগরবাসী পশু কোরবানি দেবেন বলে আশাবাদী সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ। তারা বলছেন, নির্দিষ্ট স্থানে পশু কোরবানি দিতে নগরবাসীকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রচারণা হয়েছে।

সিসিক সূত্র জানায়, নির্দিষ্ট স্থানে পশু কোরবানি দিতে নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা ওয়ার্ডবাসীর মধ্যে প্রচারণা চালিয়েছেন। তারা কোরবানির স্থানও ওয়ার্ডবাসীকে অবগত কেেছন। ব্যাপক প্রচারণার অংশ হিসেবে নগরীর ক্বিনব্রিজের নিচে ও বন্দরবাজার এলাকায় ভিডিওচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। এছাড়া প্রতি ওয়ার্ডে মাইকিং, লিফলেট বিতরণ প্রভৃতির মাধ্যমেও নগরবাসীকে উদ্বুদ্ধকরণের উদ্যোগ নেয় সিটি করপোরেশন।

সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব বলেন, ‘নগরীকে পরিচ্ছন্ন রাখার স্বার্থেই নির্দিষ্ট স্থানে কোরবানির পশু জবাইয়ের জন্য আমরা ২৭টি ওয়ার্ডে ২৭টি স্থান নির্দিষ্ট করেছি। নগরবাসীকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রচারণাও হয়েছে। আমরা আশাবাদী, নগরবাসী নির্ধারিত স্থানে এসে কোরবানি দেবেন।’

 

(আজকের সিলেট/২ সেপ্টেম্বর/ডি/এসসি/ঘ.)

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ