আজ বৃহস্পতিবার, ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

মৌলভীবাজারে আ.লীগের সম্মেলনে ছাত্রলীগের ‘তান্ডব’

  • আপডেট টাইম : December 2, 2019 7:47 PM

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : মৌলভীবাজার সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনে কেন্দ্রীয় নেতাদের সম্মুখে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ মধ্যে হলের চেয়ার ও কাঁচের জানালা ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার দুপুরে পৌর জনমিলন কেন্দ্রে এই ঘটনা ঘটে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে মঞ্চ থেকে পৌর মেয়র মো. ফজলুর রহমান সাউন্ড বক্সে ভাংচুর বন্ধ করতে বার বার তাদের অনুরোধ করলেও ভাংচুরের ঘটনা থামেনি। পরে মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মোঃ কামাল হোসেন সহ একাধিক অতিথিরা নেমে এসে সংঘর্ষ থামানোর চেষ্ঠা করে ব্যর্থ হন।

চেয়ার ভাংচুর ও কাঁচের জানালা ভাংচুরের ঘটনায় অতিথির সারি ও সামনের সারিতে থাকা নেতা-কর্মীদের মধ্যে এক আতঙ্ক বিরাজ করে। প্রায় ২৫ মিনিট দীর্ঘ এই ভাংচেরর ঘটনার সময় অনেককে ভিডিও ফুটেজ তুলতে ব্যস্থ হতে দেখা যায়।

সম্মেলনস্থলে থাকা পুলিশ অনুরোধ করে ব্যর্থ হলে পরবর্তীতে রিজার্ভ পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরিস্থিতি শান্ত হলে বক্তব্য দিয়ে এ ঘটনার জন্য ছাত্রলীগকে অভিযুক্ত করেন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ।

তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করি। সম্মেলন যাতে সুন্দর ও সফল ভাবে সম্পন্ন হয় তার জন্য মৌলভীবাজারের সব নেতারা চেষ্টা চালাবেন। আজ ছাত্রলীগ যে কাজ করেছে তা জগন্নতম কাজ। তারা আমাদের অসম্মান করেছে। আমরাও ছাত্র রাজনীতি করেছি। অনেক নির্যাতন জেল জুলুম সজ্য করে আজকে এখানে এসেছি। এখানে যারা বসা আছেন, তারা সবাই জুলুম নির্যাতন করে এখানে এসেছেন।’

মিছবাহ বলেন, ‘আমরা তৃতীয় প্রজন্মের হাতে ক্ষমতা তুলে দিতে চাই। আমরা নতুন নেতৃত্ব দিতে চাই। আমাদের দ্বিতীয় প্রজন্মের হাতে বর্তমান রাজনীতি আছে, আমরা চাই তৃতীয় প্রজন্ম উন্নত বাংলাদেশ গঠন করবে’।

দুপুরে সম্মেলন অধিবেশন শুরু হয়। এতে সভাপত্বি করেন বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামাল আহমদ, সম্মেলনের উদ্বোধন করেন মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমদ। প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রিয় আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন।

বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ, কেন্দ্রীয় সদস্য রফিকুর রহমান ও প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান।

এদিকে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে চলতি কাউন্সিল স্থগিত ঘোষনা করা হয়েছে। সোমবার পৌর জনমিলন কেন্দ্রে কাউন্সিল অধিবেশন স্থগিতাদেশ ঘোষণা দেন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন। এর আগে সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা আ’লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র ফজলুর রহমান বলেন, পদ প্রত্যাশীদের মধ্যে কোন সমযোতা না আসায় কাউন্সিল স্থগিত ঘোষনা করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ