আজ শনিবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

কেমন আছেন শাবানা?

  • আপডেট টাইম : January 6, 2020 11:01 AM

বিনোদন ডেস্ক : সাল ১৯৬০, ফ্রক পরা বছর আটের এক শিশুকে মোটা শাড়ি পরিয়ে দাঁড় করে দেয়া হয় সাত জন মেয়ের সঙ্গে একটি নাচের দৃশ্যের শুটিংয়ের জন্য। নৃত্য পরিচালক তখন নির্মাতাকে জিজ্ঞেস করলেন- এই মেয়ে এত মোটা শাড়ি পরে নাচতে পারবে তো? ছোট্ট সেই শিশু নির্মাতার উত্তরের আগেই চেঁচিয়ে বললেন, নাচতে পারব স্যার, আমার কোনো ছোট্ট শাড়ি নেই।

এরপর ক্যামেরা চালু হলে নাচতে গিয়ে সেদিন হোঁচট খেয়ে পড়ে যায় সে, কিন্তু থেমে যায়নি। আত্মবিশ্বাসী মনোবল নিয়ে আবার উঠে দাঁড়িয়েছিলো। এরপর ৩৬ বছরের ক্যারিয়ারে ১১ বার জাতীয় পুরস্কার পাওয়া সেই ছোট শিশুটি আফরোজা সুলতানা রত্না থেকে হয়ে গেলেন বাংলা চলচ্চিত্রের জীবন্ত কিংবদন্তি শাবানা।

মাত্র আট বছর বয়সে সিনেমায় নাম লেখান আফরোজ সুলতানা রত্না ওরফে শাবানা। এহতেশাম পরিচালিত ‘নতুন সুর’ নামের ছবিতে তিনি শিশুশিল্পী হিসেবে কাজ করেন। এরপর ‘চকোরী’ ছবিতে নায়িকা চরিত্রে অভিনয় শুরু করেন শাবানা। এরপর গড়েছেন একের পর এক ইতিহাস।

জীবনের ৬৭ বসন্ত শেষে ঢালিউডের বিউটি কুইনখ্যাত অভিনেত্রী শাবানা এখনো তেমনই সৌন্দর্যের অধিকারী। বয়স ভাঁজ একটুও স্পর্শ করতে পারেনি তাকে। ২০১৭ সালের পর সম্প্রতি ফের দেশে ফিরেছেন তিনি। সাথে তার স্বামী চিত্রপ্রযোজক ওয়াহিদ সাদিক।

জননী খ্যাত এই অভিনেত্রী শাবানার কাছে বারংবার প্রশ্ন আসে, কেন হঠাৎ করে প্রবাসী হলেন তিনি।

শাবানার সাবলীল জবাবে জানান, আমার একটি প্রতিজ্ঞা ছিলো, তিন সন্তানকে সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলব। এক সময় যখন তারা আমেরিকায় পড়াশোনার জন্য চলে গেল তখন আমার মনে হলো ওখানে তো ওরা ভীষণ একা। আমাকে খুব মিস করছে। মা হয়ে আমি যদি তাদের কাছ থেকে দূরে থাকি তাহলে তারা হয়তো মানসিকভাবে ভেঙে পড়বে। সন্তান আর সংসারের টানে ১৯৯৯ সালে অভিনয় থেকে অবসর নিয়ে আমেরিকায় সন্তানদের কাছে চলে যাই।

শাবানার বড় মেয়ে ফারহানা সাদিক সুমি এমবিএ, সিপিএ পাস করে আগে চাকরি করতেন। পরে তার দুই বাচ্চাকে দেখাশোনার জন্য তিনি চাকরি ছাড়েন।

ছোট মেয়ে সাবরিনা সাদিক বিশ্বখ্যাত ইয়েল ও হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে বর্তমানে শিকাগোর হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতা করছেন। একমাত্র ছেলে শাহীন সাদিক নিউজার্সির রাদগার্স ইউনিভার্সিটি থেকে বিবিএ সম্পন্ন করে এখন সেখানকার স্বনামধন্য ব্লুমবার্ড কোম্পানিতে কর্মরত।

জীবনে অপ্রাপ্তি আর কিছু নেই বলে সৃষ্টিকর্তার প্রতি সন্তুষ্ট জ্ঞাপন করা শাবানা এর আগে ২০১৭ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশে এসেছিলেন। এবার তিনি এসেছেন পারিবারিক কিছু কাজে। আরও সপ্তাহখানেক থাকবেন বাংলাদেশে। তারপর ফিরে যাবেন যুক্তরাষ্ট্রে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ