আজ বৃহস্পতিবার, ২রা এপ্রিল, ২০২০ ইং

৪২০ ভোট পাওয়া নেতাকে মানতে নারাজ তৃণমূল জাপা

  • আপডেট টাইম : February 26, 2020 5:23 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : এটিইউ তাজ রহমান। জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য ও অতিরিক্ত মহাসচিব। বিগত প্রায় তিন বছর থেকে তিনি দায়িত্ব পালন করেন জেলা জাপার আহবায়কের। এই দীর্ঘ সময়ের মধ্যে জেলার ১৩টি উপজেলা ও ৫টি পৌরসভার মধ্যে ১ টি কমিটিও করতে পারেননি তিনি। এরই মধ্যে সাম্পতিক সময়ে আবারো তাকে আহবায়ক করে জেলা জাপার সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এনিয়ে এখন চমর বিরক্ত তৃণমূলোর জাপার ত্যাগী নেতাকর্মীরা।

এটি নিয়ে এখন দলটির মধ্যে চরম বিভক্তি দেখা দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে জাতীয় পার্টির তৃণমূলের ত্যাগী নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে বিদ্রোহ করছেন। তারা এই কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করে দরেলর সর্বস্থরের নেতাকর্মীদের নিয়ে পাল্টা কমিটি ঘোষনাপ করেছেন।

সর্বশেষ গত রোববার সিলেট জেলা জাতীয় পার্টির তৃণমূল নেতাকর্মীদের ব্যানারে নগরীর একটি হোটেলে একটি সংবাদ সম্মেলন করেন দলটির নেতাকর্মীরা। এসময় এটিইউ তাজ রহমানের নেতৃত্বাধিন কমিটিকে চ্যালেঞ্জ করে ৯১ সদস্য বিশিষ্ট পাল্টা একটি আহবায়ক কমিটিও ঘোষণা করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা জাপা নেতা মো. বাশির আহমদ।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন, ‘জাতীয় পার্টির নামধারী কিছু ব্যাংক লুট করে জেল থেকে বাঁচতে কেন্দ্রীয় অর্থলোভীদের মাধ্যমে দলের বর্তমান চেয়ারম্যানকে বিভ্রান্ত করে প্রেসিডিয়ামের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন। পার্টির আহবায়ক পদে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতা স্বীকারের পর আবারও একই পদ পেয়েছেন। এর আগেও আড়াই/৩ বছর দায়িত্বপালন করলেও ১৩ উপজেলা ৫ পৌরসভা ও ৬ থানার একটিরও সম্মেলন করতে পারেননি। সেই নেতৃত্বই আবার আহবায়কের পদে অধিষ্ঠিত হয়ে পার্টিকে কবর দেয়ার ব্যবস্থা করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।’

তিনি বলেন, জনৈক ব্যক্তিকে আহবায়ক করে সিলেটের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি। সদস্য রাখা হয়েছে মাত্র ১৩ জন। ৪/৫ বছরেও যিনি কোন ইউনিটের সম্মেলন করতে পারেননি তাকেই আবার কার স্বার্থে আহবায়ক করা হয়েছে- তৃণমূল নেতাকর্মীরা এর জবাব চায়।

তিনি বলেন, গত সংসদ নির্বাচনে ওই আহবায়ক মাত্র ৪২০ ভোট পেয়েছে। অথচ তাকেই প্রেসিডিয়াম, অতিরিক্ত মহাসচিব ও সিলেট জেলা শাখার আহবায়কের পদ দিয়ে বারবার পুরস্কৃত করা হচ্ছে। ত্যাগী নেতাকর্মীরা আজ কোনঠাসা। তিনি বলেন, তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনার মাধ্যমে সিলেট জেলা জাতীয় পার্টির একটি গ্রহণযোগ্য সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন না করলে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। পরে তারা ইশরাকুল হোসেন শামীমকে আহবায়ক ও আহসান হাবীব মঈনকে সদস্য সচিব করে ৯১ সদস্য বিশিষ্ট সিলেট জেলা তৃণমূল জাতীয় পার্টির আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট জহির উদ্দিন পল্টুসহ তৃণমূল পর্যায়ের জাপা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় ছাত্র সমাজের সাবেক কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সাবেক জেলা সভাপতি মুজিবুর রহমান ডালিম আজকের সিলেটকে বলেন, তাজ রহমান সুবিধাজনক সময়ে জানার রাজনীতিতে এসে পদজুড়ে বসে দলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করছেন। দলের তৃণমূল কর্মীরা তাকে মানতে নারাজ। তিন বছরেও সম্মেলন করতে পারেননি। তিনি নেতৃত্ব দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। তাই তার নেতৃত্বে সম্মেলন তৃণমূল নেতা কর্মীরা মেনে নেবে না। অচিরেই দলের তৃণমূল কর্মীদের নেতৃত্ব সিলেটে সম্মেলনের নির্দেশ আসবে। দলের চেয়ারম্যান ইতিমধ্যে বিষয়টি জেনেছেন। আর সদ্য অন্য দল থেকে আসা কাউকে দলের নেতৃত্বে আসতে হলে আগে দলের কর্মীদের সাথে পরিচিত হতে হবে, মাঠে থাকতে হবে।

সিলেট জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সদস্য ঘোষিত পাল্টা কমিটির আহবায়ক ইশরাকুল হোসেন শামীম আজকের সিলেটকে বলেন, যে ব্যাক্তিদের জেলার ২৪টি সাংগঠনিক কমিটির মধ্যে একটি উপজেলায়ও নেয়া সম্ভব হয়নি। আহবায়ক ও সদস্য সচিবকে কোন উপজেলার নেতাকর্মীরাই তাদের গ্রহণ করেনি। তারা একটি কমিটিও করতে পারেন নি। এদের কারনে পার্টির চাকা উল্টো দিকে ঘুরছে। যোগ্য নেতৃত্বের অভাবে পার্টির আজ এই অবস্থা।

তিনি বলেন, আগামী ১৪ই মার্চ দলের নতুন চেয়ারম্যান প্রথমবারের মত সিলেট সফর করবেন। যারা একটি কমিটিও করতে পারেনি তা কিভাবে চেয়ারম্যানের সফর ও জেলা সম্মেলন করবে?

সার্বিক বিষয় জানতে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এটিইউ তাজ রহমানের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ