আজ সোমবার, ১লা জুন, ২০২০ ইং

সিলেট-হবিগঞ্জে খুলছে না দোকানপাট, কোন পথে সুনামগঞ্জ-মৌ.বাজার?

  • আপডেট টাইম : May 10, 2020 9:42 AM

ডেস্ক রিপোর্ট : পবিত্র ঈদুল ফিতর ও রমজান উপলক্ষে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ও সরকারি নির্দেশনা মেনে আজ ১০ মে থেকে দেশের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছিল সরকার। তবে জনস্বার্থের কথা বিবেচনা করে সিলেট ও হবিগঞ্জের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। অন্যদিকে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন নি সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের ব্যবসায়ীরা।

শনিবার বিকেলে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. কামরুল হাসানের সাথে হবিগঞ্জের চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রি, হবিগঞ্জ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি ও হবিগঞ্জ মার্চেন্ট এসোসিয়েশন এবং অন্যান্য নেতৃবৃন্দের বৈঠকের পর হবিগঞ্জের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পবিত্র ঈদুল ফিতর পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

হবিগঞ্জ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আলমগির মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘প্রতিদিন হবিগঞ্জে করোনা রোগী বাড়ছে। এই অবস্থায় আমরা কোনভাবেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে মানুষকে ঝুঁকির মুখে ফেলতে পারি না। জনস্বার্থের কথা বিবেচনা করে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান, কাঁচাবাজার, ফার্মেসি ইত্যাদি যথারীতি খোলা থাকবে।’

এর আগে গত ৮ মে শুক্রবার দুপুরে সিলেট সিটি কর্পোরেশনে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের বৈঠকে জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় ঈদের আগ পর্যন্ত সিলেট নগরীর কোনো শপিং মল ও বিপণী বিতান না খোলার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে উপস্থিত একাধিক ব্যবসায়ী নেতা জানান, করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় ১০ মে থেকে সিলেটের কোনো শপিং মল, মার্কেট ও ফ্যাশন হাউস না খোলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে। ঈদের আগে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান না খোলার ব্যাপারেও সবাই একমত হন।

অন্যদিকে এখনো কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারেন নি মৌলভীবাজারের ব্যবসায়ীরা। তবে যদি ব্যবসায়ীরা জনস্বার্থের কথা বিবেচনা না করে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক দোকানপাট খুলতে চান তাহলে কঠোরভাবে মানতে হবে সরকারের দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি।

শনিবার মৌলভীবাজার শহরের পশ্চিমবাজারে বিজনেস ফোরাম কার্যালয়ে ব্যবসায়ীদের সাথে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বিজনেস ফোরামের সভাপতি নুরুল ইসলাম কামরানের সভাপতিত্বে এতে মৌলভীবাজার চেম্বার অব কমার্সের সহ সভাপতি আবু সুফিয়ানসহ ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় মেয়র ফজলুর রহমান বলেন, যেহেতু সরকার ১০ মে থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নির্দিষ্ট সময়ে দোকান খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছে। ব্যবসায়ীদের দোকান খোলা রাখা বা বন্ধ রাখা- এটা তাদের নিজস্ব সিদ্ধান্তের বিষয়। কিন্তু দিনদিন করোনা সংক্রমণের হার বাড়ছে। কেউ দোকান খুলতে চাইলে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান খুলতে হবে। আর স্বাস্থ্য-ঝুঁকি বিবেচনায় দোকান বন্ধ রাখলে তাদের ধন্যবাদ দেবো।

তবে মৌলভীবাজার শহরের কাপড় ও ডিপার্টমেন্ট স্টোর এমবি ও বিলাস ঈদ মৌসুমে তাদের দোকান বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে। এছাড়াও এসআর প্লাজা, টিএস প্লাজাসহ বেশ কয়েকটি শপিং মল, মার্কেট ও দোকান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

আর সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রি দোকান খোলার বিপক্ষে থাকলেও সুনামগঞ্জের ব্যবসায়ী সমিতি দোকান খোলার পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহেদ আহমেদ।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য বিধি মেনে ১০ তারিখ থেকে দোকান পাঠ খোলা হবে। তবে কেউ যদি স্বাস্থ্য বিধি না মানেন তাহলে প্রশাসন তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমাদের অনেক ব্যবসায়ীর মাল দোকানে থেকে নষ্ট হচ্ছে। তাই আমরা দোকান খোলার ব্যাপারে একমত। কিন্তু আতংকের মধ্যেও আছি। যদি করোনা আক্রান্ত হই। তারপরও কি করব অনেক ব্যবসায়ী চলতে পারছেন না টাকার অভাবে। তাই বাস্তবতা মেনে সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছি।

প্রসঙ্গত, সিলেট বিভাগে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২৭২ জন। এরমধ্যে মারা গেছেন পাঁচজন আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরছেন ১৮ জন।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ