আজ শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং

বাজারে বাড়ছে ভিড়, বাড়ছে করোনা আক্রান্ত

  • আপডেট টাইম : May 16, 2020 9:56 AM

ডেস্ক রিপোর্ট : সিলেটে লকডাউনে থেমে নেই মানুষের অবাদ চলাচল। লকডাউনে ঘরে থাকার বদলে বর্তমানে ঈদের কেনাকাটায় সিলেটের মার্কেট, শপিংমল, বিপণি বিতান খোলা না থাকলেও পাইকারিবাজার ও খোলা বাজারে মানুষের ঢল নামে প্রতিদিনই।

এদিকে, ঈদের কেনাকাটা করতে বাড়ির বাইরে বের হওয়া মানুষদের নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব নিয়ন্ত্রণ করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের।

সিলেট বিভাগে ইতোমধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৪৫ জনে দাঁড়িয়েছে। বিভাগটিতে আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়লেও করোনা সম্পর্কে এখনও সেভাবে তৈরি হয়নি সচেতনতা। এ অবস্থা চলতে থাকলে সিলেটে করোনা ভয়াবহ আকার ধারণ করবে বলে আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেটের সহকারী পরিচালক আনিসুর রহমান বলেন, কিছুদিন আগেও মানুষ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে কম বের হওয়াতে করোনা আক্রান্ত কিছুটা কমছিল। কিন্তু বর্তমানে মানুষ আর ঘরবন্দি থাকছে না। এভাবে চলতে থাকলে সিলেটে করোনা ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে।

সরেজমিন দেখা যায়, সিলেট নগরের বন্দরবাজার, কালিঘাট, আম্বরখানা, কাজিরবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদিনই মানুষের ঢল নামে। সেই সঙ্গে নগরের হাসান মার্কেট ও লালদিঘী হকার্স মার্কেট খোলার পর এক ব্যবসায়ী করোনার উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়াতে মার্কেট দু’টি বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু এখনও শহর থেকে গ্রামে মানুষের অবাদ চলাফেরা বন্ধ হয়নি। এমনকি উপজেলা সদরগুলোর কাপড়ের মার্কেট খোলা রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। ফলে সিলেট শহরের বিভিন্ন স্থানে হয়ে উঠে লোকে লোকারণ্য।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেটের আঞ্চলিক কার্যালয়ের তথ্যমতে, বিভাগের চার জেলায় হোম কোয়ারেন্টিনে লোকজনের সংখ্যা কমলেও করোনা আক্রান্তের হার বেড়েই চলেছে।

শুক্রবার পর্যন্ত বিভাগের চার জেলায় আরও ৭৯ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে আনা হলেও বিপরীতে ছাড়পত্র পেয়েছেন ১৫৪ জন। এখনও হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন ১ হাজার ২২৭ জন। আর করোনা আক্রান্ত রয়েছেন ৩৪৫ জন। এদের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি ১৩৩ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৬৯ জন ও মারা গেছেন ছয় জন। করোনা আক্রান্তদের মধ্যে সিলেটে ১০১, সুনামগঞ্জে ৬৭, হবিগঞ্জে ১১৮ এবং মৌলভীবাজারে ৫৭ জন।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ