আজ শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং

ওষুধ ছাড়াই করোনাকে জয় করলেন জাবের

  • আপডেট টাইম : May 21, 2020 10:38 AM

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি : দেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে নভেল করোনা ভাইরাসে রোগী ও মৃতের সংখ্যা। আক্রান্ত হচ্ছে সাধারন মানুষ থেকে শুরু করে স্বাস্থ্যকর্মী, ডাক্তার, পুলিশ থেকে শুরু করে সাংবাদিকরাও।

তবে এবার মহামারি করোনাভাইরাসের সাথে টানা ২২ দিন যুদ্ধ করে ওষুধ ছাড়াই জয়ী হলেন মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার স্বাস্থ্যকর্মী আহমেদুল কবির জাবের। তিনি উপজেলার জয়চন্ডী ইউনিয়নের ঘাগটিয়া কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। দুই-তিন দিনের মধ্যে দায়িত্বে ফিরে যেতে প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন জাবের।

আহমেদুল কবির জাবের বলেন, করোনা পজেটিভ খবর পাওয়ার আমাদের সমাজের অনেকের করোনা আক্রান্ত ব্যাক্তি নিয়ে প্রতিক্রিয়াশীল মনোভাবের কারণে একটু মানসিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়লেও নিজের আত্মবিশ্বাস হারাইনি। আমার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নুরুল হকস্যারসহ সহকর্মী ও ভাই বন্ধুরা আমাকে সাহস জোগিয়েছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সচেতনতার মাধ্যমে এখন আমি পুরোপুরি সুস্থ। কিছুদিনের মধ্যে আমি আবার কর্মস্থলে যোগদান করবো । আমার পরিবারও সুস্থ।

কিভাবে সুস্থ হলেন জানতে চাইলে করোনা জয়ী স্বাস্থ্যকর্মী আহমেদুল কবির জাবের জানান, হালকা জ্বর জ্বর অনুভব হওয়ায় ২৫ এপ্রিল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে প্রথম স্যাম্পল দিয়েছিলাম। পরে ৫ মে আমার রিপোর্ট পজেটিভ আসে। আর এই ৫ তারিখ থেকেই আমি বাসায় আইসোলেশনে থাকি।

আমার রিপোর্টে কোন উপসর্গ না থাকায় আমি কোনো ধরনের ঔষধ পান না করে শুধু ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নুরুল হক স্যারের নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি।

তিনি আরও জানান, নিয়মিত রোযা রাখছি, নামাজ পড়ছি। এবং আদা, লং, দারুচিনি, লেবু দিয়া রং চা পান করেছি ও ভিটামিন সি জাতীয় ফলফ্রুট খেয়েছি।

তিনি বলেন, কেউ করোনা আক্রান্ত হলে আমার এই নির্দেশিকা মেনে চললে ইনশাআল্লাহ করোনা মুক্ত হবেন।

এদিকে করোনা থেকে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে গত ১৭ মে দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে সেখানে তাঁর হাসপাতালের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ সকল ডাক্তার, সকল স্বাস্থ্যকর্মী ও সহকর্মীরা জাবেরকে ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ করে নেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ নুরুল হক বলেন, যেহেতু জাবেরের কোন উপসর্গ ছিলোনা তাই হোম আইসোলেশনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সে এখন পুরোপুরি সুস্থ এবং আবারো নিজ দায়িত্ব পালন করতে আগ্রহী।

উল্লেখ্য, গত ২৫ এপ্রিল তার দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়। ৫ মে তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর তাকে নিজ বাসায় আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেয়া হয়।

এরপর ৫ মে পুনরায় জাবেরসহ তার পরিবারের সকল সদস্যদের দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাবে পাঠানা হয়। ১৬ মে জাবেরসহ তার পরিবারের সকলের করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ