আজ মঙ্গলবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

বাবা-মা পাল্টে ছাত্রদলের আহবায়ক, অবশেষে অব্যাহতি

  • আপডেট টাইম : October 8, 2020 11:08 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : মা-বাবার নাম পাল্টে শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ জালিয়াতি ও প্রতারণার মাধ্যমে সিলেট সদর উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক হওয়ায় আবু সাঈদ মো. শাহিনকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

উপজেলা ছাত্রলের কমিটি ঘোষণার পর দলের পদবঞ্চিত নেতারা অভিযোগ করেন জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমনের ‘প্রিয়ভাজন’ হওয়ায় আবু সাঈদ মো. শাহিনকে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে সদর উপজেলার আহ্বায়ক পদে মনোনীত করা হয়।এনিয়ে সমালোচনার মুখে পড়ে সিলেট জেলা ছাত্রদল।

আলোচনা-সমালোচনার মুখে অবশেষে সিলেট সদর উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক পদ থেকে মা-বাবার নাম বদলকারী মো. শাহিন আহমদকে অব্যাহতি দিয়েছে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদ।

বুধবার ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় দফতর সম্পাদক আজিজুল হক সোহেল স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়- ছাত্রদলের তথ্য ফরমে অসত্য তথ্য দেয়ায় শাহিন আহমদকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমন ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন নাদিম কোনোভাবেই এর দায় এড়াতে পারেন না। বিধায় তাদেরকেও চরমভাবে সতর্ক করা হলো।

সেখানে আরও বলা হয়, দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দের নিকট থেকে অজবাবদিহিমূলক আচরণ অমার্জনীয় অপরাধ। বিধায় প্রথমবারের মতো ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে সতর্ক করা হচ্ছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের আচরণ হলে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, গত ৮ সেপ্টেম্বর সিলেট জেলা ছাত্রদলের আওতাধীন সকল উপজেলা শাখাসহ ৩২টি ইউনিট কমিটি অনুমোদন দেয় জেলা ছাত্রদল। এর একদিন পর জকিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। কমিটি প্রকাশের পরদিন ১০ সেপ্টেম্বর গোলাপগঞ্জ ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা সংবাদ সম্মেলন করে নানা অভিযোগ উত্থাপন করেন।

এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ সরকারি কলেজ ছাত্রদলের আহ্বায়ক, ৮ জন যুগ্ম আহ্বায়ক ও ২ জন সদস্য মিলে কমিটির ১২ জন নেতা একটি লিখিত অভিযোগ পাঠান ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে।

অভিযোগে বলা হয়, কলেজ ছাত্রদলের সদস্য সচিব মতিউর রহমান মুমিন ওই কলেজের কোনো ছাত্র নন। কলেজের অধ্যক্ষ স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি প্রত্যায়নপত্রও সংযুক্তি আকারে জমা দেয়া হয় ঢাকায়।

সবচেয়ে বড় প্রতারণার আশ্রয় নেয়া হয় সিলেট সদর উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠনে। আহ্বায়কের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমনের ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিত আবু সাঈদ মো. শাহিনকে। কিন্তু এ পদ পেতে প্রতারণা ও জালায়াতির আশ্রয় নেন সাঈদ।

সদর উপজেলার খাদিমনগরের উমাদপাড়া গ্রামের ভোটার তালিকায় সিরিয়াল ৯৭ নম্বরে দেখা গেছে আবু সাঈদ শাহিনের নাম। তালিকায় শাহিনের বাবার নাম মো. আব্দুল হাসিম ও মায়ের নাম মোছা. নেহার বেগম। এছাড়া পেশা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে বেসরকারি চাকরিজীবী ও জন্ম তারিখ ১৫/১০/ ১৯৮৯। কিন্তু সদর উপজেলা ছাত্রদলের কমিটিতে তার নাম আসে মো. শাহিন আহমদ হিসেবে।

ছাত্রদলের নেতাদের কাছে শাহিনের দেয়া সার্টিফিকেটে দেখা যায়, তার নাম মো. শাহিন আহমদ, পিতার নাম আকবর আলী ও মায়ের নাম ফাতেমা বেগম। এসএসসি পাস করেছেন ২০০৫ সালে। ভোটার আইডি ও স্কুলের সনদের সঙ্গে নিজের ও মা-বাবা নামের কোনো মিল নেই।

এ বিষয়ে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহসভাপতি ও সিলেট বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা ওমর ফারুক কাওছার ওই সময় বলেন, সদর উপজেলার আহ্বায়ক আমাদের কাছে যেসব কাগজপত্র জমা দিয়েছেন এতে তার নাম মো. শাহিন আহমদ রয়েছে। কমিটি দেয়ার পর আমরা জেনেছি সে সবকিছু জালিয়াতি করেছে।

তিনি বলেন, মানুষ পদের জন্য যে নিজের মা-বাবার নাম বদলাতে পারে এটা খুবই দুঃখজনক। আমরা এ ব্যাপারে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ