আজ শনিবার, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

জৈন্তাপুর মহিলা মাদ্রাসা জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা

  • আপডেট টাইম : November 17, 2020 12:39 AM

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি : আর্থিক অনিয়ম-দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাৎ, প্রাতিষ্ঠানিক শৃংখলা ভঙ্গ, দায়িত্ব পালনে অবহেলা অযোগ্যতা, পরিচালনা কমিটির সাথে অশুভ ও অন্যায় আচরণ,বিশ্বাসভঙ্গ এবং মাদ্রাসার অফিসিয়াল ডকুমেন্ট ও অফিস সামগ্রী আত্মসাৎ সহ বিভিন্ন অভিযোগে বরখাস্তকৃত সাবেক ভারপ্রাপ্ত সুপার আব্দুল গাফফার ও এলাকার কর্মহীন বেকার যুবক আব্দু্ল হানিফ চক্র জৈন্তাপুর মহিলা মাদ্রাসা অবৈধভাবে জোরপূর্বক দখলের করছে।
 
জানা যায়, করোনাকালীন বন্ধের সময় রোববার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের আদেশ অমান্য করে গোপনে কিছু বখাটে যুবক নিয়ে মাদ্রাসা ক্যাম্পাসে অবস্থান নেয় হানিফ ও গাফফার। তারা মাদ্রাসার তালা ভেঙ্গে বেআইনী ভাবে অফিসকক্ষে প্রবেশ করে এবং কিছু সময় অতিবাহিত করে।
 
এই চক্র অত্যন্ত সুকৌশলে জৈন্তাপুর থানা পুলিশ কেও মিসগাইড করে। তারা মাদ্রাসায় অবস্থান করতে নিরাপত্তার অজুহাত দেখিয়ে জৈন্তাপুর পুলিশ কে সহযোগীতা করতে একটি ভূয়া দরখাস্ত থানায় প্রেরণ করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে রোববার সকালে জৈন্তাপুর মডেল থানার সাব ইন্সপেক্টর মোফাখখারুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মাদ্রাসায় অবস্থান নেয় এবং কমিটি কর্তৃক বহিষ্কৃত প্রাক্তন সুপার গাফফার ও বখাটে হানিফ গং কে পাহারা ও নিরাপত্তা দেয়। পুলিশের এমন ভূমিকা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
 
জানা যায়, উপজেলা সদরে অবস্থিত জৈন্তাপুর মহিলা মাদ্রাসা দখলের জন্য হানিফ ও গাফফার চক্র দীর্ঘদিন থেকে অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এর আগে ২০১৪ সালে এ চক্র ঐ মাদ্রাসা দখলের চেষ্টা করেছিল। এলাকাবাসীর প্রতিরোধের মুখে তারা পালিয়ে যায়। এ বছর করোনা মহামারির সুযোগে অবৈধ চোরাচালান ব্যবসার সাথে জড়িত গাফফার ও হানিফ বাহিনী মাথাচাড়া দিয়ে উঠে। তারা বিভিন্ন ভাবে কমিটির সাথে সংঘর্ষ বাঁধানোর চেষ্টা করছে। জৈন্তাপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার এ বিষয়ে অবগত আছেন বলে জানা যায়। তিনি এবং নিজপাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও এলাকার মুরুব্বীদের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রোববার গাফফার -হানিফ চক্র মাদ্রাসার দারোয়ান কে জিম্মি করে জোরপূর্বক প্রবেশ করে।
 
এ ব্যাপারে জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মহসীনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্রথমে অস্বীকার ও জানা নেই বললেও পরবর্তীতে ফোন দিয়ে এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি তথ্য নিয়েছি। আমাদের ফোর্স মাদ্রাসায় গিয়েছিল। ঠিক আছে। এস আই মোফাখখারুল আপনার সাথে কথা বলবে।
 
জৈন্তাপুর মডেল থানার সাব ইন্সপেক্টর মোফাখখারুল এ প্রতিবেদককে জানান, আম্বিয়া নামে একজন লিখিত আবেদন দিয়েছিল। এ জন্য গিয়েছিলাম। আম্বিয়া কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, সম্ভবত গভর্নিং বডির সদস্য। এস আই মোফাখখারুল কে বহিষ্কৃত সুপার গাফফার কে প্রটোকল ও নিরাপত্তা প্রদানের কথা বললে তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, গাফফার কে চিনি না। কোন পরীক্ষা হতে দেখিনি। আর একজন লোক পেয়েছিলাম সম্ভবত উনি গাফফার। তিনি ইসলামিক সোসাইটির কাগজপত্র দেখাতে পারে নি। গাফফার বহিষ্কৃত সুপার জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, জানা নেই। অথচ গত ১৯ শে সেপ্টেম্বর পরিচালনা কমিটি লিখিতভাবে থানা পুলিশ কে ভারপ্রাপ্ত সুপারের বহিষ্কারের বিষয়টি জানিয়েছে বলে জানা যায়।
 
মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি এডভোকেট আব্দুল আহাদের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, বহিষ্কৃত সূপার মাদ্রাসায় গিয়েছেন। আমরা খবর পেয়ে ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে জানিয়েছি। ইউ এন ও মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আব্দুল মালিক কে মাদ্রাসায় যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঘোষিত এসাইনমেন্টের প্রস্তুতি ও সম্পন্ন করার আদেশ দিয়েছেন। আমাদের সব কিছুর পূর্ণ প্রস্তুতি রয়েছে।
 
গভর্নিং বডির সদস্য আম্বিয়ার ব্যপারে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, এ নামে কমিটি তে কেউ নেই।
 
আব্দুল হানিফ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, হানিফ নামে কোন উপদেষ্টা তো দূরের কথা আমাদের সোসাইটি কিংবা মাদ্রাসার কোন উপদেষ্টা কমিটিই নেই।
 
সোসাইটির কাগজপত্রের কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের আদেশে তাঁর কাছে প্রয়োজনীয় সব কিছু দিয়েছি। পুলিশ সোসাইটির কাগজ পায়নি প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, পুলিশ তো আমাদের কারো কাছে আসে নি। পুলিশ গিয়েছে আব্দুল গাফফারের কাছে। সে তো মাদ্রাসার বহিষ্কৃত সুপার। তার কাছে এ তথ্য পুলিশ পাবে কি করে?
 
মাদ্রাসা সভাপতি বলেন, আর্থিক অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাৎ ও বিশৃংখলার অভিযোগে আব্দুল গাফফার কে গত ১৯ সেপ্টেম্বর পরিচালনা কমিটি ভারপ্রাপ্ত সুপারের পদ থেকে তাঁকে বরখাস্ত করেছে। আমরা এ সিদ্ধান্ত লিখিতভাবে উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ,মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান, নিজপাট ইউনিয়ন কে অবহিত করেছি। থানা পুলিশ জানে না জিজ্ঞেস করলে এডভোকেট আব্দুল আহাদ বলেন, আমাদের কাছে রিসিভ কপি আছে।
Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ