অন্যতম স্থাপত্য কীর্তি শাবির শহীদ মিনার
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০:০১

অন্যতম স্থাপত্য কীর্তি শাবির শহীদ মিনার

শাবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২০/০২/২০২৪ ১০:৩৫:২৫

অন্যতম স্থাপত্য কীর্তি শাবির শহীদ মিনার


উদ্ভাবন, গবেষণা আর সাফল্যে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস যেমন অনন্য তেমনি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যেও অপরূপ। শহরের কোলাহল আর যান্ত্রিকতা থেকে দূরে প্রকৃতির কোলে গড়ে ওঠা এ ক্যাম্পাস শিক্ষা, সংস্কৃতি ও স্থাপত্যশৈলীতে বহন করছে দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও গৌরবের চিহ্ন। এমন নৈসর্গিক সৌন্দর্য ও স্থাপত্যশৈলীতে অন্যতম তাৎপর্যপূর্ণ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার।

ক্যাম্পাসে প্রবেশের পর দর্শনার্থীদের প্রধান আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু এই শহীদ মিনার। শিক্ষার্থীসহ দর্শনার্থীদের আড্ডা, গান আর কবিতায় নিয়মিত প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ। বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তন ও ইউনিভার্সিটি সেন্টারের পাশ ঘিরে ৫৮ ফুট উঁচু টিলার ওপর ৬ হাজার ৮৮৬ বর্গফুট জায়গা নিয়ে নির্মিত সিলেটের অন্যতম এই স্থাপত্য কীর্তি।

সমতল ভূমি থেকে শহীদ মিনারের উপরে উঠতে অতিক্রম করতে হয় ১০১টি সুদীর্ঘ সিঁড়ি। যা মোট তিনটি ফ্লাইটে বিভক্ত। সিঁড়ি পেরিয়ে উপরে উঠতেই চোখে পড়বে সৌন্দর্য বর্ধিত বৃত্তাকার দেয়াল। এর পরেই মূল বেদিতে ওঠার জন্য আরও সাত ধাপের ছোট সিঁড়ি পার হতে হয়।

এরপর প্রকৃতির সৌন্দর্য যে কাউকেই মুগ্ধ করে তোলে। মুহূর্তের মধ্যেই হারিয়ে যায় ক্লান্তির স্মৃতি। এখান থেকে অবলোকন করা যায় পুরো ক্যাম্পাসকে। মানসিক প্রফুল্লতার সঙ্গে মনে করিয়ে দেয় বীর শহীদদের আত্মত্যাগের কথা, জাগ্রত করে দেশপ্রেম।

১৯৯১ সালের পহেলা ফাল্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক যাত্রা শুরু হলেও ওই বছর ক্যাম্পাসে নিজস্ব শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়নি। সেই সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সিলেটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে ২১ ফেব্রুয়ারিতে মাতৃভাষা দিবস পালন করে। তবে পরের বছর অর্থাৎ ১৯৯২ সালে ছোট-বড় গোল আকৃতির তিনটি স্তম্ভ দ্বারা একটি শহীদ মিনার তৈরি করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শহীদ মিনার নির্মিত হওয়ার পূর্বে এখানেই জাতীয় দিবসগুলোতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করতেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

পরবর্তীতে ২০০১ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন জাতীয় সংসদের স্পিকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী বর্তমান শহীদ মিনারটির ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেছিলেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সেই বছর সেপ্টেম্বর মাসে প্রায় ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে এই শহীদ মিনার নির্মাণ হয়। শহীদ মিনারটির নকশা ও নির্মাণ করেন স্থপতি মহিউদ্দিন খান।

পুরো শহীদ মিনার প্রাঙ্গণটি সবুজের সমারোহে নানা প্রজাতির বৃক্ষরাজি দ্বারা আচ্ছাদিত। সবুজ টিলায় উঁচু উঁচু বৃক্ষের ডালপালার আচ্ছাদনে বর্ণিল হয়ে উঠেছে স্থানটি। ওপর থেকে দেখতে বৃত্তাকার হওয়ায় সবুজের মাঝে লাল শহীদ মিনারটিকে মনে হয় জাতীয় পতাকার লাল বৃত্ত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৭-১৮ বর্ষের শিক্ষার্থী মো. মেহেদী হাসান নিলয় বলেন, আমাদের শাবিপ্রবি ক্যাম্পাসের সবচেয়ে আকর্ষণীয়, উল্লেখযোগ্য, সুপরিচিত, দৃষ্টিনন্দন স্থান ‘শহীদ মিনার, শাবিপ্রবি’। শহীদ মিনারটির স্থাপত্যশৈলী ও নান্দনিক সৌন্দর্য সবাইকে মোহিত করে। এই শহীদ মিনারের অন্যতম আকর্ষণ হলো ১০১টি ধাপের সুদীর্ঘ সিড়ি, সিড়ি পেরিয়ে সুন্দর সবুজে ঘেরা পথ, পথ পেরিয়ে সামনে গেলেই বেদি। সবুজের মাঝে মনোরম পরিবেশে তৈরী এই অসম্ভব সুন্দর শহীদ মিনারটি আমাদের শাবিপ্রবির গর্ব!

ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টি টেকনোলজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষ প্রথম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী সারা এলিন গীতি বলেন, আমার কাছে সিলেটের অন্যতম স্থাপত্য হলো শাবিপ্রবির শহীদ মিনার এর অন্যতম কারণ হলো শহীদ মিনারটির স্থাপত্যশৈলী। টিলাবেষ্টিত এই শহীদ মিনারের নান্দনিক সৌন্দর্য যে কাউকেই আকর্ষণ করে। এই শহীদ মিনারের অন্যতম আকর্ষণ হলো ১০১টি ধাপের সুদীর্ঘ সিড়ি। সিড়ি পেরিয়ে চোখে পড়ে সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য নির্মিত বৃত্তাকার নীচু দেয়াল, আর তার পরেইমূল বেদীতে উঠার জন্য আরও সাতটি ধাপের ছোট সিড়ি। এতটা উঠার পর সবুজের মাঝে মনোরম পরিবেশ সত্যিই মনকে ভালো করে দেয়। ক্যাম্পাস সমতল থেকে ৫৮ ফুট উঁচুতে এই স্থাপনাটা নিরিবিলি, নিরাপদ এবং এর অসম্ভব সৌন্দর্যের জন্য সিলেটের স্থাপত্য গুলার মাঝে এটি অতুলনীয়।

আজকের সিলেট/ডি/এসটি

সিলেটজুড়ে


মহানগর