চোরাচালান বন্ধ করুন
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৪:৩৯

চোরাচালান বন্ধ করুন

সম্পাদকীয়

প্রকাশিত: ২০/০১/২০২৪ ১১:০৯:০৫

চোরাচালান বন্ধ করুন


খাদ্যপণ্যসহ অনেক জরুরি পণ্য প্রতিনিয়ত চোরাচালান হয়ে বাইরে চলে যাচ্ছে। আর সেটি দেশের মূল্যস্ফীতিতে বড় ভ‚মিকা রাখছে। প্রকাশিত খবরে দেখা যায়, কিছুদিন ধরে প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারে অন্যান্য জরুরি পণ্যের সঙ্গে চালও পাচার হয়ে যাচ্ছে। জানা যায়, অভ্যন্তরীণ চরম অস্থিতিশীলতার মধ্যে মিয়ানমারে এক কেজি চালের দাম বাংলাদেশি মুদ্রায় এক হাজার টাকা পর্যন্ত উঠেছে। একই মানের চালের দাম বাংলাদেশে ৫৫ টাকা কেজি। ফলে পাচারকারীরা চাল পাচারে উঠেপড়ে লেগেছে। আর তার প্রভাব পড়ছে বাংলাদেশের বাজারে।

প্রকাশিত খবরাখবর থেকে জানা যায়, কিছুদিন ধরে মিয়ানমারে পেট্রল, অকটেনসহ জ্বালানি তেল এবং ভোজ্য তেলের চোরাচালানও বেড়ে গেছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর হাতে এমন কিছু চোরাই পণ্য ধরাও পড়েছে। গত শুক্রবার রাতে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) অভিযান চালিয়ে দুটি পিকআপ ভ্যান থেকে ৬৯টি প্লাস্টিক কনটেইনার ভর্তি দুই হাজার ৯০০ লিটার অকটেন জব্দ করে। জানা যায়, পাচারকারীদের নৌকায় পৌঁছে দিতে পারলেই প্রতি লিটার অকটেনের জন্য পাচারকারীরা পায় ১৬৫ টাকা। একইভাবে পাচার হচ্ছে ভোজ্য তেলসহ অন্যান্য পণ্য।

এদিকে এক সপ্তাহে দেশে কেজিপ্রতি চালের দাম পাঁচ থেকে সাত টাকা পর্যন্ত বেড়ে গেছে। সরকারও দাম কমাতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু বাজার বিশেষজ্ঞদের ধারণা, চোরাচালান রোধ করা না গেলে মূল্যস্ফীতি কমানোর অন্যান্য উদ্যোগ খুব একটা ফলপ্রসূ হবে না।

শুধু মিয়ানমার সীমান্ত নয়, সিলেঠে ভারতীয় সীমান্ত দিয়েও চোরাচালান বাড়ছে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ২০২৩ সালে মোট দুই হাজার ২৮৮ কোটি ৬৬ লাখ সাত হাজার টাকা মূল্যের চোরাই পণ্য জব্দ করেছে।

বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য চোরাচালান একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তাই চোরাচালান রোধে কঠোর উদ্যোগ নিতে হবে। আর চালসহ খাদ্যপণ্য ও জ্বালানি তেলের চোরাচালান যেকোনো মূল্যে বন্ধ করতে হবে।

সম্পাদকীয়

সিলেটজুড়ে


মহানগর