সিলেটে সহ-সভাপতি' পদে ভারাক্রান্ত ছাত্রলীগের চার কমিটি
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪২

রাতে জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের চার ইউনিটের কমিটি ঘোষনা

সিলেটে সহ-সভাপতি' পদে ভারাক্রান্ত ছাত্রলীগের চার কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৪/০৩/২০২৪ ০২:৪৯:৫৮

সিলেটে সহ-সভাপতি' পদে ভারাক্রান্ত ছাত্রলীগের চার কমিটি


কথিত আছে- ‘যার নাই কোনো গতি সে হয় সহ-সভাপতি’। এমনই একটি পদ সহ-সভাপতির ভারে ভারাক্রান্ত সিলেট ছাত্রলীগের নবঘোষিত ৪ কমিটি। যে সব কমিটির শতকরা ৩৫% পদ সহ-সভাপতির। ফলে হিন্দুল খেতে শুরু করেছে কমিটিগুলো।

শুক্রবার রাতে সিলেট মহানগর ও সিলেট জেলা ছাত্রলীগ যৌথ প্রযোজনায় এ ৪ কমিটি ঘোষণা করে।

ঘোষিত কমিটিগুলো হচ্ছে- বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার আওতাভুক্ত ছাত্রলীগ মুরারি চাঁদ (এমসি) কলেজ সিলেট কমিটি, ছাত্রলীগ সিলেট সরকারি কলেজ, সিলেট কমিটি, ছাত্রলীগ সিলেট সদর উপজেলা, সিলেট কমিটি ও ছাত্রলীগ দক্ষিণ সুরমা উপজেলা,সিলেট কমিটি ।

নবঘোষিত এ চার কমিটির মোট সদস্য সংখ্যা ৪৩১ জন।  এদের মধ্যে সহ-সভাপতির পদধারী হলেন ১৪০ জন। আর এ নিয়ে দলীয় অঙ্গনে বইতে হয়েছে আলোচনা-সমালোচনার ঘুর্ণিঝড়।

জানা যায়, শুক্রবার দিবাগত রাতে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি কিশওয়ার জাহান সৌরভ ও সাধারণ সম্পাদক নাঈম আহমদ এবং সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজ পৃথক বিজ্ঞপ্তিতে সিলেট জেলা ও সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের এ চার ইউনিটের কমিটির অনুমোদন দেন।

অনুমোদনপ্রাপ্ত কমিটিগুলোর মধ্যে ১১০ সদস্যের  এমসি কলেজ ছাত্রলীগের কমিটিতে সভাপতি ও সেক্রেটারীর পরে সহসভাপতি পদে ৩৬ জন , যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ১০ জন ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে রয়েছেন ৯ জন।

৮১ সদস্যের  সিলেট সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের কমিটিতে সভাপতি-সেক্রেটারী পরে সহসভাপতি পদে ২৫ জন , যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ৯ জন ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ৯ জন রয়েছেন।

নবঘোথি সিলেট সদর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে সদস্য ১১৯ জন। সভাপতি-সেক্রেটারী বাদে কমিটিতে রয়েছে সহসভাপতি পদে ৩৮ জন , যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ৯ জন  ও সাংগঠনিক সম্পাদক পরে ৯ জন । আর ১২১ সদস্যের ছাত্রলীগ দক্ষিণ সুরমা উপজেলা সিলেট কমিটিতে সভাপতি-সেক্রেটারী বাদে রয়েছেন  সহসভাপতি ৪১ জন,  যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে ৯ জন ও  সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ৯ জন।

চার কমিটির সমলে মোট সদস্য সংখ্যা ৪৩১ জন হলেও এদের মধ্যে সহ-সভাপতি  পদ দেওয়া হয়েছে ১৪০ জনকে । এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাবেক এক ছাত্রনেতা জানান, এখনকার কমিটির নমুনা দেখলে মনে হয় আমরা কর্মী নয়, নেতা বানাতে ব্যস্ত। তাইতো এবারের জাতীয় নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে আশানুরূপ ভোটার  উপস্থিত করতে আমরা ব্যর্থ হয়েছি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মারজান হামিদ নামের একজন লিখেন- '৩ নং তেতলি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের রাহাত হত্যার মূল হুতা সামসুদ্দুহা সাদি  ও বিবাহিত অনেককে দিয়েই ছাত্রলীগের কমিটি দেওয়া হয়েছে এটা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জন্য একটা কলংকরুপ অধ্যায় যা দক্ষিন সুরমা উপজেলা শতশত ছাত্রলীগ শুভাকাঙ্ক্ষীরা মেনে নিতে পারছেন না যে খুনি আর বিবাহিত লোকেরা কিভাবে ছাত্রলীগে পদ পায় , তাহলে আমরা কি মনে করবো এখানে স্পষ্ট যে টাকার কাছে বিক্রি হলো সিলেট জেলা ছাত্রলীগ।'

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পদ বঞ্চিত ছাত্রলীগের একজন কর্মী জানান, 'আগে শুনতাম যার নাই কোন গতি, সে হয় সহ-সভাপতি। আর এখন দলে দলে সহ-সভাপতি। যতপদ তত টাকা। আমার টাকা নেই তাই পদ জুটিয়ে নিতে পারিনি।'

এদিকে, কমিটির সার্বিক বিষয় নিয়ে কথা বলার জন্য সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের সাথে যোগাযোগ চেষ্টা করেও বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

আজকের সিলেট/এমএম/কেআর

সিলেটজুড়ে


মহানগর