ওসমানীনগরে হত্যাকান্ডের ঘটনায় আটক ৩
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৫:৫২

ওসমানীনগরে হত্যাকান্ডের ঘটনায় আটক ৩

ওসমানীনগর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১০/০২/২০২৪ ০৮:১০:৫৯

ওসমানীনগরে হত্যাকান্ডের ঘটনায় আটক ৩


ওসমানীনগরে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হামলায় এক যুবক নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় গুরুত্বর আহত হয়েছেন নারীসহ আরো ১৫ জন।  তাদেরকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহত আনোয়ার হোসেন (৪৫)। উছমানপুর ইউনিয়নের বেতখাই গ্রামের শফিকুর রহমানের পুত্র। এই ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে জায়গা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বেতখাই গ্রামের জিলু মিয়া ও  তার চাচাত ভাই গনি মিয়া ও কাদির মিয়ার মধ্যে বিরোধ চলে আসছিলো। শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর জিলু মিয়া তার মেয়ের কবর জিয়ারত করে প্রতিপক্ষের নির্মানাধীন ঘরের সামন দিয়ে আসার সময় তাকে কাদির মিয়া নিষেধ দিলে দুই পক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও  সংঘর্ষ বাদে। এসময় উভয় পক্ষ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ওয়ালী উল্যা বদরুলের দারস্থ হলে আগামীকাল রোববার এই বিষয়টি মিমাংসার জন্য দিন ধার্য করা হয়।

কিন্তু শনিবার সকাল ৯ টার দিকে গণি মিয়া, বাদশা মিয়া, কাদির মিয়া,সুমেল মিয়া, সালমান মিয়া, শাহিন মিয়া, তুফায়েল মিয়াসহ আরো কয়েকজন অতর্কিত ভাবে জিলু মিয়াসহ তাদের পক্ষের লোকজনের উপর দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। হামলার সময় আনোয়ার হোসেন গরু নিয়ে মাঠে যাচ্ছিলেন। সেখানে গিয়ে তাকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপালে ঘটনাস্থলে আনোয়ার গুরুত্বর আহত হন। আশঙ্কা জনক অবস্থায় আনোয়ারসহ আহতদের উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আনোয়ার হোসেন মারা যান।

হামলায় জিলু মিয়া, তার স্ত্রী হেনা বেগম, ছেলে রাসেল মিয়া, জাকির মিয়ার ছেলে মাহিদ ও নুরুল হোসেন, শফিকুরের পুত্র কবির হোসেন, নাছিমা বেগম, হাছনা বেগম, নিহত আনোয়ারের স্ত্রী রুমি বেগম ও মিজানুর রহমানসহ প্রায় ১৫জন আহত হয়েছেন। এছাড়া আহত জিলু মিয়া ও তার পুত্র রাসেলের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন তার স্বজনরা।

এদিকে, ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে হামলায় অভিযুক্ত একই গ্রামের মখই মিয়ার পুত্র বাদশা মিয়া, কাদির মিয়া ও তার পুত্র শাহিন মিয়াকে আটক করেছে।

উসমানপুর ইউপি চেয়ারম্যান ওয়ালী উল্যাহ বদরুল বলেন, বেথখাই গ্রামে চাচাত ভাইদের দন্ধের বিষয়টি আগামী রবিবার স্থানীয়দের নিয়ে মিমাংশা করার কথা ছিলো। কিন্তু এর আগেই প্রতিপক্ষের হামলায় একজন নিহত হন। আমি তাৎক্ষনিক বিষয়টি আইন শৃঙ্খলা বাহীনিকে অবগত করি।

ওসমানীনগর থানার ওসি রাশেদুল হক বলেন, এঘটনায় থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে-৩জনকে আটক করেছে। বাকি অভিযুক্তদের আটকের অভিযান চলছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি  চলছে। লাশ ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্থান্তর করা হবে।

আজকের সিলেট/প্রতিনিধি/এসটি

সিলেটজুড়ে


মহানগর