একযুগেও পাওয়া যায় নি '৪৮ ঘণ্টার' তদন্ত প্রতিবেদন
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৩:৫১

সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড

একযুগেও পাওয়া যায় নি '৪৮ ঘণ্টার' তদন্ত প্রতিবেদন

আজকের সিলেট ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১/০২/২০২৪ ১০:৫৮:২২

একযুগেও পাওয়া যায় নি '৪৮ ঘণ্টার' তদন্ত প্রতিবেদন


সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যাকাণ্ডের এক যুগ পূর্ণ হচ্ছে আজ ১১ ফেব্রুয়ারি। এত বছরেও বহুল আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের কারণ জানাতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

র‍্যাব পাঁচ বছর আগে আদালতে জমা দেওয়া অগ্রগতি প্রতিবেদনে বলেছিল, ঘটনাস্থলে দুজন অজ্ঞাত পুরুষের ডিএনএর নমুনা পাওয়া গেছে। তবে এখন পর্যন্ত সেই দুজনকে খুঁজে বের করা সম্ভব হয়নি। এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন এখন পর্যন্ত আদালতে জমা দেওয়ার তারিখ ১০৫ বার পিছিয়েছে।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় খুন হন সাংবাদিক দম্পতি সাগর ও রুনি। সাগর সে সময় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল মাছরাঙা টিভিতে এবং রুনি এটিএন বাংলায় কর্মরত ছিলেন।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় নির্মমভাবে খুন হন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার এবং তাঁর স্ত্রী এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি। পরদিন ভোরে তাঁদের ক্ষতবিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় সেদিন রুনির ভাই নওশের আলী রোমান বাদী হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় হত্যা মামলা করেন। এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবিতে সোচ্চার হয়ে ওঠে সাংবাদিক সমাজ। পালন করা হয় বিভিন্ন কর্মসূচি।

তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রহস্য উদ্‌ঘাটনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। তবে তদন্ত শেষ হয়নি এক যুগেও। এ পর্যন্ত ১০৫ বার তারিখ পেছানো হয়েছে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের।

সর্বশেষ গত ২৩ জানুয়ারি এই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। সেদিন প্রতিবেদন না দেওয়ায় ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শফি উদ্দিন ২৭ ফেব্রুয়ারি নতুন দিন ধার্য করেন।

১ ফেব্রুয়ারি সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘তদন্তে যত দিন সময় লাগে সঠিকভাবে দায়ী নির্ণয় করতে, তাদের ততটুকু সময় দিতে হবে। সেটা যদি ৫০ বছর হয়, ৫০ বছর দিতে হবে।’

সাগর-রুনি হত্যা মামলাটি প্রথমে তদন্ত করেন শেরেবাংলা নগর থানার একজন কর্মকর্তা। ওই বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি মামলার তদন্তভার পান গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) উত্তরের পরিদর্শক মো. রবিউল আলম। দুই মাস পর হাইকোর্টের আদেশে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় র‍্যাবকে। মামলার তদন্ত এখনো শেষ হয়নি। এমনকি ২০১৭ সালের ২১ মার্চের পর আর কোনো অগ্রগতি প্রতিবেদনও আদালতে দাখিল করা হয়নি।

এ মামলায় রুনির বন্ধু তানভীর রহমানসহ আটজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার অন্য সাতজন হলেন বাড়ির নিরাপত্তাকর্মী এনাম আহমেদ ওরফে হুমায়ুন কবির, রফিকুল ইসলাম, বকুল মিয়া, মিন্টু ওরফে বারগিরা মিন্টু ওরফে মাসুম মিন্টু, কামরুল হাসান অরুন, পলাশ রুদ্রপাল ও আবু সাঈদ। তাঁদের মধ্যে তানভীর ও পলাশ রুদ্র জামিনে আছেন। অন্যরা কারাগারে আছেন।

আজকের সিলেট/বিবি/ডি/এসটি

সিলেটজুড়ে


মহানগর