মধ্যনগর উপজেলা নির্বাচনে চতুর্মূখী লড়াইয়ের আভাস
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৯:২১

মধ্যনগর উপজেলা নির্বাচনে চতুর্মূখী লড়াইয়ের আভাস

অমৃত জ্যোতি, মধ্যনগর (সুনামগঞ্জ) থেকে

প্রকাশিত: ৩০/০৫/২০২৪ ০৪:৪০:৩২

মধ্যনগর উপজেলা নির্বাচনে চতুর্মূখী লড়াইয়ের আভাস


আগামী ৫ইজুন প্রথম বারের মতো অনুষ্ঠিত হবে নবগঠিত মধ্যনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। প্রচারণার বাকী আর মাত্র কয়েকদিন। নির্বাচনকে ঘিরে মাঠ পর্যায়ে ভোটারদের দোয়ারে দোয়ারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন সতেরোজন প্রার্থী। এরমধ্যে চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন ৮জন পুরুষ প্রার্থী,ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হিসেবে চুড়ান্ত হয়েছেন ২জন।

আটজন চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন দোয়াত কলম প্রতীকে মোঃ গিয়াস উদ্দিন তালুকদার,আনারস প্রতীকে প্রবীর বিজয় তালুকদার দেবল,ঘোড়া প্রতীকে রয়েছেন সজল কান্তি সরকার,কাপ-পিরিচ প্রতীকে সাইদুর রহমান,মোটরসাইকেল প্রতীকে রয়েছেন আব্দুর রাজ্জাক,চিংড়ি মাছ নিয়ে রয়েছেন বরুণ কান্তি দাস গুপ্ত,শালিক পাখি নিয়ে রয়েছেন আব্দুল আওয়াল মিছবাহ ও হেলিকপ্টার প্রতীকে মাঠে রয়েছেন নুরুল ইসলাম।

নির্বাচনী মাঠে ৮জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে হতে পারে চারজন হেবীওয়েট প্রার্থীদের চতুর্মুখী ভোটের লাড়াই।এমনটাই আভাসের বাতাস বইছে ভোটারদের তুণমূল আলোচনায়।

মধ্যনগর উপজেলা চেয়ারম্যান পদে আট জন প্রার্থীর মধ্যে ভোটারদের তুমুল আলোচনায় রয়ছে ৪ প্রার্থী নাম।আলোচিত চার প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন মোঃগিয়াস উদ্দিন তালুকদার,প্রবীর বিজয় তালুকদার দেবল,মোঃআব্দুর রাজ্জাক ভূইয়া ও মোঃসাইদুর রহমান।

স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ অঙ্গ সংগঠনের অধিকাংশ নেতৃবৃন্দ দোয়াত কলম প্রতীকে মধ্যনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ গিয়াসউদ্দিন তালুকদারের সমর্থনে ব্যাপক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আনারস প্রতীকে রয়েছেন প্রবীর বিজয় তালুকদার দেবল। সদর ইউপির ছিলেন সদ্যসাবেক চেয়ারম্যান। তাঁর সাথে স্থানীয় নেতৃবৃদের দেখা না গেলেও সাধারণ ভোটারদের মনে জায়গা করে নিয়েছেন বলে এমনটাই রব উঠেছে সমগ্র উপজেলায়। তবে কোন নামধারী বা রাজনৈতিক উচ্চ পদধারী নেতৃবৃন্দ ওপেন না হলেও অভ্যান্তরে করছেন ভোট চেয়ে গভীর প্রচারনা। এমনটাই আভাস পাওয়া যায়।জানা গেছে প্রার্থী নিজেই প্রায় ছয়মাস যাবৎ এলাকায় নির্বাচনী মাঠে পদচারণায় মনোভাব প্রকাশ করছিলেন।

মোটরসাইকেল প্রতীকে ভোট লড়াইয়ের মাঠে আছেন মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ভূঁইয়া। নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছেন তিনিও।বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি'র বড় ভাই হিসেবে রয়েছে পরিচিতি।তাঁর সঙ্গে নেতৃবৃন্দের মধ্যে সাবেক উপজেলা আওয়ামীলীগ কয়েক নেতা ও উপজেলা যুবলীগের প্রধান সারির নেতাকর্মীও কাজ করছেন।

অন্যদিকে কাপ-পিরিচ প্রতীকের প্রার্থী মোঃসাইদুর রহমানের রয়েছে আলোড়ন।একবার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি।চার ইউনিয়নে প্রায় দুটি ইউনিয়নে রয়েছে পরিচিতি।নিকটাত্মীয় একজন দেশসেরা  আর্তমানবতার সেবায় যথেষ্ট ভুমিকা থাকায় করছেন আভ্যান্তরীন প্রচারণা।লোকমুখে ভূইয়া পরিবার ও সাইদুর পরিবারের মধ্যে রয়েছে নির্বচনী ব্যাপক প্রতিযোগীতা।কেহ কাউকে ছাড় দেননা কোন সময়ই।

হেভিওয়েট পচার প্রার্থীরেই মধ্যনগর উপজেলা সদরে রয়েছে আলাদা নির্বাচন পরিচালনার জন্য অস্থায়ী কার্যালয়।বাজছে নির্বাচনী বিভিন্ন ছন্দের মনমাতনো গান। 

মোঃগিয়াসউদ্দিন তালুকদারের দোয়াত কলমের সমর্থক মধ্যনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পরিতোষ সরকারের সাথে কথা বললে তিনি বলেন-মধ্যনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াসউদ্দিন তালুকদার তিনি সাংগঠনিক মানুষ।সর্বদাই নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন আওয়ামী রাজনীতে।আমাদের প্রয়োজন সকলি তাঁকে সহযোগিতা করা।সেই ধারাবাহিকতায় মধ্যনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের সকল নেতৃবৃন্দ একযোগে কাজ করে যাচ্ছি।বিজয় আমাদেরই হবে আশা করছি।

প্রবীর বিজয় তালুকদার দেবলের আনারস প্রতীকের সমর্থক দুগনই গ্রামের মোঃআবুল কাশেম ও বিছড়াকান্দা গ্রামের মোঃরুবেল মিয়া বলেন-এখন পর্যন্ত সাধারণ লুঙ্গিপড়া কৃষকদের মনের কথা প্রবীর বিজয় তালুকদার দেবল এগিয়ে আছেন।বিজয় ইনশাআল্লাহ তাঁরেই হবে।

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ভূঁইয়া'র মোটরসাইকেল প্রতীকের সমর্থক মধ্যনগর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ বলেন-আমার প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাক ভূইয়া তিনি সহ তার পারিবারিক ইতিহাস ঐতিহ্য সমাজের জনকল্যাণমুখী,কার্য্যক্রম করে এলাকার সাধারণ জনমানুষের মনজয় করে নিয়েছেন।এরিমধ্যে একাধিক শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্টান স্থাপনায় সহযোগীতা করছেন। এবং আমেরিকার একটি সংস্থার মাধ্যমে হিন্দু ধর্মীয় অবকাঠামো নির্মাণে ভূমিকা রাখবেন আগামীদিনেও। আগামী ৫জুন সকলের ভোটের মাধ্যমে বিজয় সুনিশ্চিত হবে ইনশাল্লাহ।

মোঃসাইদুর রহমানের কাপ-পিরিচ প্রতীকের সমর্থক চামরদানী গ্রামের মোঃলুৎফুর রহমান বলেন,সাইদুর ভাই আমাদের তৃণমুল মানুষের মনে ঠাই করে নিয়েছেন। আগেও জনপ্রতিনিধিত্ব করেছেন ঐ সময় না শুধু যে কোন সময় বিপদে সাইদুর ভাই আমাদের পাশে সর্বদাই থাকেন।তার বিজয় সুনিশ্চিত।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আট জন প্রার্থীই যোগ্য।তবে কে হচ্ছেন জনগণের মনজয়কারী? গবেষক,সুধী সমাজ সহ একাধিক মহলের লোকজন চেয়ে রয়েছেন ৫ই জুনের অপেক্ষায়।কে হচ্ছেন নবগঠিত মধ্যনগর উপজেলার প্রথম চেয়ারম্যান?

আজকের সিলেট/এপি

সিলেটজুড়ে


মহানগর