আজ শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

নবাব সিরাজউদ্দৌলার নবম বংশধরের এক্সক্লুসিভ সাক্ষাতকার

  • আপডেট টাইম : August 25, 2017 6:00 AM

দিনা রহমান : বিশেষ কারো সম্পর্কে বিশেষভাবে জানতে সবাই আগ্রহী হন। তারা কীভাবে খান, কী করে ঘুমান, কী করে আনন্দ পান আরো কতকিছু, তাইনা বন্ধুরা? বাংলার ইতিহাসের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে আস্থা, বিশ্বাস, ভালোবাসায় বীর নবাব সিরাজউদ্দৌলা আর তাঁর প্রিয় পরিবারের নাম।

নবাব আলিবর্দী খান, শরফুন্নিসা বেগম,হাশেম জায়েন উদ্দিন, আমিনা বেগম,নবাব সিরাজউদ্দৌলা, বেগম লুৎফুন্নিসা প্রত্যেকেই বাংলার রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে রেখেছেন অবিস্মরণীয় ভূমিকা। সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে এগিয়ে এসেছেন প্রকৌশলী এস. জি. মোস্তফা ও সৈয়দা হোসনে আরা বেগমের পুত্র আর একই বংশের ৯ম প্রজন্ম ঐতিহ্যের যুবরাজ সৈয়দ গোলাম আব্বাস। ভোরের আলো যেমন তার শুভ্রতা দিয়ে স্বাগত জানায় নতুন দিনকে, তেমনি নিজের সততা দেশপ্রেম ভালোবাসা আর ঐতিহ্যের সৌরভ দিয়ে লাল সবুজের বাংলাকে আলোকিত করছেন, বাংলার লক্ষকোটি প্রাণের এই যুবরাজ। সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় ঐতিহ্যের ৯ম রক্তধারা ঐতিহ্যের ছোঁয়ায় তার ভালোবাসার সৌরভ ছড়াচ্ছেন বাংলার প্রতিটি দেশপ্রেমি হৃদয়ে হৃদয়ে।

আজকের সিলেট ডটকম এর পাঠকদের জন্য তাঁর কথা জানাচ্ছেন আমাদের বিশেষ প্রতিবেদক দিনা রহমান।

দিনা রহমান : আজকের সিলেট ডটকম-এর পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগত। যদি কিছু মনে না করেন তবে আপনার পুরো নাম জানতে পারি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : সৈয়দ গোলাম আব্বাস আরেব ওরফে নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা।

দিনা রহমান : প্রিয়জন কিংবা বন্ধুরা অন্য যেসব নামে ডাকে।
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : সিরাজউদ্দৌলা, নবাব, নবাবজাদা, এস. জি. আব্বাস, তুহিন,আলি, সাইয়্যাদ ওয়ারেস রেজা, আরিফ, তুহি, রাব্বি, হৃদয়, যুুবরাজ, “SHAB” আরও অনেক সুন্দর সুন্দর সব নাম।

দিনা রহমান : আপনার জন্ম কোথায়?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : লাল সবুজের বাংলাদেশ।

দিনা রহমান : বর্তমানে কি পেশায় নিয়োজিত আছেন?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : লেখালেখি করি, বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গবেষনাও করি।

দিনা রহমান : আপনার পিতার পুরো নাম কি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : এস. জি. মোস্তফা।

দিনা রহমান : আপনার মাতার পুরো আম্মার নাম কি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : সৈয়দা হোসনে আরা বেগম।

দিনা রহমান: আপনারা কয় ভাই-বোন?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : তিন জন। মাসুম, ইমু, মুনমুন।

দিনা রহমান : আপনার প্রিয় উক্তি কি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : “কারো উপকার না করতে পারলে ক্ষতি করো না”। “একটি ভালোবাসা একটি ভালোবাসার জন্ম দেয়। একটি ঘৃণা একটি ঘৃণার জন্ম দেয়”।

দিনা রহমান : আপনার প্রিয় পোশাক কোনটি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : পরিস্থিতির সাথে মানানসই যেকোনো পোশাক।

দিনা রহমান : সাফল্যের সংজ্ঞা আপনার কাছে কি রকম?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : বিনয়; কাজের প্রতি সততা; আর বাংলার দেশপ্রেমি মানুষের ভালোবাসায় যখন সমাজের বিভিন্ন প্রান্তে আমার নামটা শ্রদ্ধা-বিশ্বাস-আস্থা ভালোবাসায় শুনতে পাই।

দিনা রহমান : আপনার প্রিয় খাবার কি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : ফ্রুট জুস, আইসক্রিম, টফি-মিমি-চকলেট, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, থাই স্যুপ, ফ্রেশ ফ্রুট, রুটি,দধি, ভেজিটেবল সালাদ, মাছ, টক-মিষ্টি-আচার, আম, নবাব সিরাজউদ্দৌলার প্রিয় ‘ফালসা’ ফল আর খুব মিস করি আম্মার হাতের মজাদার সব ঐতিহ্যবাহী নবাবী রান্না।

দিনা রহমান : নিজেকে বিশ্লেষণ করেন কিভাবে?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : প্রথমত, একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে। দ্বিতীয়ত, সব কিছুকে বেশিমাত্রায় সরল ভাবা। তৃতীয়ত,আমার জন্ম হয়েছে অনেকগুলো দায়িত্ব পালন করতে, সেটা পরিবার থেকে রাষ্ট্রীয় ক্ষেত্রে। আমি এই পৃথিবীতে নিজের জন্য শুধু আসিনি। তাই প্রকৃতি, ঐতিহ্য, পশু পাখি, দেশপ্রেমি মানুষ আর লাল সবুজের বাংলার জন্য আমার ভালোবেসে কাজ করে যেতে হবে। খুব বেশি আবেগ প্রবণ, খুব বেশি আদুরে, অনেক স্পষ্টবাদী, যা বুঝি তাই বলি সেটা যাই হোক।

দিনা রহমান : আপনার শিক্ষা জীবন সম্পর্কে কিছু বলুন?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : এসএসসি- লালমাটিয়া (হা: সো:) বয়েজ হাইস্কুল ঢাকা, এইচএসসি ঢাকা কলেজ, নাট্যকলা থিয়েটার স্কুল ঢাকা, ডিপ্লোমা ইন গ্রাফিক্স এন্ড মাল্টিমিডিয়া আনন্দ আই.আই.টি ঢাকা, অনার্স দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা, মাস্টার্স- আহসান উল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

দিনা রহমান : ক্যাম্পাসের শেষের দিনগুলো কেমন ছিল?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : শেষের বছরটি অনেক আনন্দময় ও রঙিন ছিল, যা আজও মিস করি।

দিনা রহমান : ক্যাম্পাসে কোন কারণে আপনি সেরা ছিলেন?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : আহসান উল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্সে অধ্যয়নরত অবস্থায় ছাত্রদের বিপুল ভোটে নির্বাচিত প্রধান ছাত্র নেতার দায়িত্বে ছিলাম আমি। দীর্ঘ সময় থেকে প্রচলিত ছাত্রনেতাদের কার্যক্রমের ধারা থেকে বেরিয়ে উন্নয়ন ও গঠনমূলক কার্যক্রমে নিজেকে এবং শিক্ষার্থীদের সকলকে সম্পৃক্ত করতে পারায় সকলের প্রিয়জন ছিলাম।

দিনা রহমান : ক্যাম্পাসে সেরা মুহূর্ত কোনটি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : প্রথমত প্রতিটি শিক্ষকসহ জনাব শরীফ সুলতান মাহমুদ এবং জনাব মফিজ স্যারের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করা এবং শিক্ষার্থীদের সমস্যাদি তুলে ধরে সেগুলো সমাধানে এগিয়ে আসা। অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের শিক্ষা ক্ষেত্রে সাহায্য-সহযোগিতার হাত সম্প্রসারিত করা। শিক্ষার পাশাপাশি বিভিন্ন বিনোদন কার্যক্রমের আয়োজনে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করে সেগুলো স্মরণীয় করে রাখা। আমার প্রিয় তিন বন্ধু রুহুল, অলিভিয়া আর বিপুর সাথে কাটানো প্রতিটি মুহূর্ত।

দিনা রহমান : একজন মানুষের কথা বলুন, যিনি সবসময় আপনাকে অনুপ্রেরণা দেয়?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : আমার আম্মা সৈয়দা হোসনে আরা বেগম।

দিনা রহমান : ৩টি কারণ বলুন যে জন্য নিজেকে ভালো মানুষ মনে হয়?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : প্রথমত, আমি স্বচ্ছ ও সুন্দর মনের মানুষ। দ্বিতীয়ত, নিজের লাভে জন্য কারও ক্ষতি করি না। তৃতীয়ত, চিন্তাও করতে পারি না, আমি কখনও কারও সাথে প্রতারণা করব।

দিনা রহমান : ৩টি দোষ, যা পাল্টাতে চান?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : প্রথমটি, কেউ প্রতারণা করলে/মিথ্যা কথা বললে ভয়ঙ্কর রেগে যাই। দ্বিতীয়টি, সহজেই সবাইকে বিশ্বাস করি। তৃতীয়টি, সিদ্ধান্ত নিতে দ্বিধায় ভুগি।

দিনা রহমান : এ পর্যন্ত আপনি কি কি সম্মাননা পেয়েছেন? নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : সমাজসেবায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য আমার সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছে, ‘দ্যা ডেইলী স্টার’ (দ্যা স্টার ম্যাগাজিন) ‘ফর দ্যা লাভ অব নেচার’ (২৫.১২.২০০৯)। দৈনিক কালের কণ্ঠ (শুধুই ঢাকা) ‘ঢাকায় নবাব পরিবার’ (১৭.০৭.২০১০)। দৈনিক সমকাল (মেট্রো ঢাকা) ‘নবাব পরিবারের অজানা কথা’ (০৩.১০.২০১০)। উধরষু ঝঁহ (গড়ৎহরহম ঃবধ গধমধুরহব) ‘ ঘধধিন’ং উবংপবহফধহঃ’ (১৫.০৭.২০১১)।দৈনিক কালের কন্ঠ (অবসরে) ‘সিরাজি নিশানা’ (২০.৬.২০১৫)। দৈনিক ইত্তেফাক (ভিন্ন চোখে)’ঢাকায় এখন সেই নবাব’ (২৮.৮.২০১৫)। দৈনিক সংগ্রাম (সমাজ-সংস্কৃতি)’ ইতিহাসের পুরুষ পিতা-পুত্রের কথোপকথন’ (১৪.১০.২০১৫)। বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণির জাতীয় দৈনিক “মানবজমিন” সর্বপ্রথম তাদের পত্রিকার প্রধান শিরোনামে আনে নবাব সিরাজউদ্দৌলা ও সৈয়দ গোলাম আব্বাস আরেব ওরফে নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলাকে,উক্ত পত্রিকার ২৯.৬.২০১২ তারিখে প্রকাশিত প্রধান শিরোনাম ছিল “নবাব সিরাজউদ্দৌলার বংশধর ঢাকায়”।

 

দিনা রহমান : বাংলাদেশের পরে আপনার প্রিয় সৈন্দর্যের দেশ কোনটি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : ইরান, ইরাক, ইন্ডিয়া, রাশিয়া।

দিনা রহমান : প্রিয় আপনজন বলতে কারা?।
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : নবাব আলিবর্দী খান, নবাব সিরাজউদ্দৌলা, বেগম লুৎফুন্নিসা, আম্মা সৈয়দা হোসনে আরা বেগম, নানী গুলশান আরা বেগম এবং পরম করুণাময় আল্লাহ তাআলার সুন্দর সব সৃষ্টি।

দিনা রহমান : প্রিয় সম্পর্ক কোনটি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : হৃদয়ের বন্ধন।

দিনা রহমান : কি করতে ভালো লাগে?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : ঘাস-ফুল-নদী-সমুদ্র-পাহাড়-পর্বত-অরণ্য-প্রজাপতি-ময়ূর-পাখি-কাঠবিড়ালি-খরগোশ-হরিণ-গাভী-ছাগল-গাধা-হাঁস-মুরগি-ডলফিন আর বিচিত্র সব মাছ।

দিনা রহমান : প্রিয় সঙ্গী কে?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : আমার হৃদয়ের কাছের জন… প্রিয়জনেরা।

দিনা রহমান : আপনার প্রিয় খেলা কোনটি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : বাস্কেট বল, গলফ, কাবাডি।

দিনা রহমান : প্রিয় ফুল কোনটি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : সব ফুলই প্রিয় তবে খুব বেশি ভালো লাগে গোলাপ, বেলি, গন্ধরাজ, শিউলি, কদম, রজনীগন্ধা, জুই, কামিনী, হাসনা হেনা।

দিনা রহমান : জীবনের সবচেয়ে স্মরণীয় মুহুর্ত কোনটি?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : ইরান, ইরাক, ইন্ডিয়ায় কাটানো সুন্দর মুহুর্তগুলি। মুহুর্তগুলি স্মরণীয় করবার জন্য ধন্যবাদ জানাই আম্মা সৈয়দা হোসনে আরা বেগম, আব্বা সৈয়দ গোলাম মোস্তফা, ভাই মাসুম, বোন মুনমুন ও ইমু, শিক্ষাবিদ এহসান ভাই, মোহাম্মদ, আলী, শিক্ষাবিদ সাজ্জাদ ভাই।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতা, সমাজসেবক, শিল্পপতি, শিক্ষাবিদ, নবাব সিরাজউদ্দৌলা বিষয়ক গবেষক, সাপ্তাহিক পলাশীর প্রতিষ্ঠাতা প্রকাশক ও প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক, উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট ড. মুহাম্মদ ফজলুল হক স্যারের প্রথম ফোন কল এবং আমার সাথে সাক্ষাতের জন্য তার অধিক আগ্রহ প্রকাশ্। সাক্ষাতের প্রথম দিন থেকে আজ পর্যন্ত বাংলার ঐতিহ্যবাহী পরিবারের ৯ম প্রজন্ম অর্থাৎ আমাকে যেসব সম্মাননা ও ভালোবাসা দিয়েছেন তা সবসময় আমার জীবনের স্মরণীয় সুন্দর মুহুর্তগুলির অন্যতম।

শিক্ষাবিদ সমাজসেবক ড. মুহাম্মদ তারিক চৌধুরীর সাথে সাক্ষাতের দিন থেকে আজ পর্যন্ত কাটানো টক-মিষ্টি মুহুর্তগুলো আমার জীবনের বিশেষ অধ্যায়ে সবসময় স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

দিনা রহমান : আপনার পূর্বপুরুষেরা কোন দেশের?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : নবাব আলীবর্দী খানের জন্ম ও মাতৃভূমি ইরানের সিরাজ প্রদেশে। তার প্রাণপ্রিয় নাতি যুবরাজ সিরাজউদ্দৌলা ১৯.০৯.১৭২৭ইং সালে তৎকালীন দু বাংলার রাজধানী মুর্শিদাবাদে জন্মগ্রহণ করেন। তাইতো ইরান এবং ইন্ডিয়া আমার হৃদয়ের কাছের দুটি দেশ।

দিনা রহমান : নবাব পরিবার সম্পর্কে নতুন প্রজন্ম কিভাবে জানতে পারবে?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : এক কথায় খোলা বই, যে কেউ পড়ে নিতে পারেন।

দিনা রহমান : সকালে ঘুম থেকে উঠেই কি করেন?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : পবিত্র সব নাম ও স্থাপনার ছবির ওপর দৃষ্টি দেই, পরে আম্মার ছবির সাথে কথা বলি।

দিনা রহমান : ভালোভাবে বেঁচে থাকার জন্য কোন জিনিষটি খুব বেশি প্রয়োজন?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : সততা। তবে বর্তমান সময়ে সৎভাবে বাঁচাটা একটু কঠিন, কিন্তু অসম্ভব নয়। বর্তমানে পৃথিবীতে সততা ও মেধার মূল্য কম। অসততা, অপকৌশলের মূল্য বেশি।

দিনা রহমান : কি লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছেন?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : লাল সবুজের বাংলায় এমন কিছু স্মরণীয় কাজ করে যেতে চাই, দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চাই। যখন থাকবো না এই পৃথিবীতে! তখন লাল সবুজের আকাশ বাতাস প্রকৃতির আর মানুষেরা নিজের দোয়া ও ভালোবাসায় যুগ যুগ মনে রাখবে আমায়।

দিনা রহমান : আপনার প্রিয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব কে?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : নবাব আলিবর্দী খান, নবাব সিরাজউদ্দৌলা, নবাব স্যার সলিমুল্লাহ, শেরে বাংলা একে ফজলুল হক, বিনোদ বিহারী, মওলানা ভাসানী, সুভাষ চন্দ্র বসু,Hugo savez, Fidel kastro, Ahmadinezad, রাহুল গান্ধী, বিল ক্লিনটন, মাহতির মোহাম্মদ।

দিনা রহমান : প্রিয় শিক্ষা ব্যক্তিত্ব কে?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও নবাব সিরাজউদ্দৌলা গবেষক ডক্টর মুহাম্মদ ফজলুল হক, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও নবাব সিরাজউদ্দৌলা গবেষক ড. রমিত আজাদ, বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ ড. শেখ আকরাম আলী, ইতিহাসবিদ মোহাম্মদ ইবনে ইনাম, শিক্ষাবিদ শরীফ সুলতান মাহমুদ, ড. মুহাম্মদ তারিক চৌধুরী।

দিনা রহমান : ঐতিহ্যের তরুণ কণ্ঠ বর্তমান প্রজন্সের উদ্দেশ্যে?
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : প্রকৃতি, ইতিহাস-ঐতিহ্য, দেশ, সমাজ, পরিবারকে ভালোবাসুন হৃদয় থেকে R আমাদের তারুণ্যের সংগঠন “SHAB” এর সাথে থাকুন। | www.shabplus.yolasite.com এটি আমাদের ওয়েব সাইট, fb id – shab plus। যে কেউ সম্পৃক্ত হতে পারেন আমাদের সাথে, ভালোবাসার বন্ধনে ঐতিহ্যের নতুন ইতিহাস রচনা করতে।

দিনা রহমান : আজকের সিলেট ডটকমকে সময় দেয়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।
নবাবজাদা আলি আব্বাসউদ্দৌলা : দেশ-বিদেশের পাঠকদের প্রিয় ও সিলেটের অত্যান্ত জনপ্রিয় নিউজ পোর্টাল আজকের সিলেট ডটকম’কেও ধন্যবাদ।

 

(আজকের সিলেট/২৫ আগষ্ট/ডি/এমকে/ঘ.)

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ